গাজীপুর মহানগরের কুনিয়া পাছর এলাকায় ছয়তলা ভবনের একটি কক্ষ থেকে বাড়ির মালিক সারোয়ার হোসেনের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার রাত পৌনে ১২টার দিকে গাজীপুর মহানগরের গাছা থানা পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে। সারোয়ার হোসেন কুনিয়া পাছর এলাকার ওয়াহেদ আলীর ছেলে।

জানা যায়, কুনিয়া এলাকায় একাধিক বহুতল ভবনের মালিক সারোয়ার হোসেন। কিন্তু তিনি পরিবার নিয়ে বসবাস করেন টাঙ্গাইল মির্জাপুরে।

নিহতের স্ত্রী লাভলী বেগম জানান, বাসা ভাড়া নেওয়ার জন্য তিনি নিয়মিত কুনিয়া পাছরে আসতেন। গত ১৪ নভেম্বর মির্জাপুর থেকে আসার পর আর ফেরেননি। সর্বশেষ গত শুক্রবার মোবাইলে তার সাথে যোগাযোাগ হয়। রোববার দুপুরে বাড়ির ঝাঁড়ুদার রহিমা বেগম সিঁড়ি ও ছাদ ঝাঁড়ু দিতে গিয়ে সারোয়ার হোসেনের ছাদের রুম খোলা পান। কিন্তু তিনি কখনও দরজা খোলা রেখে রুমে অবস্থান করতেন না। একপর্যায়ে রহিমা বাড়ির মালিক সারোয়ার হোসেনকে ডাকাডাকি করতে থাকেন। কোনো সাড়া শব্দ না পেয়ে রহিমা ফিরে যান। পরে আবার বিকেলে এসে দরজা দিয়ে উঁকি দিয়ে দেখতে পান- খাটের ওপর সারোয়ারের মরদেহ পড়ে আছে। পরে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেন। রাতে তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। সারোয়ারকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে তার স্ত্রী লাভলী অভিযোগ করেন।

এদিকে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-সহকারী পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম-দক্ষিণ) শাহাদাৎ হোসেন ও গাছা জোনের এসি আহসানুল হক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। গাছা থানার ওসি ইসমাইল  হোসেন বলেন, নিহতের শরীরে আঘাতের চিহ্ন নেই। ধারণা করা হচ্ছে-শ্বাসরোধে তাকে হত্যা করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানান ওসি।