ময়মনসিংহের ধোবাউড়ায় ছয় বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে প্রতিবেশী এক বৃদ্ধের বিরুদ্ধে। এই ঘটনা ধামাচাপা দিতে স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতা এক লাখ টাকায় বিষয়টি ফয়সালার চেষ্টা করেছেন বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার বিকেলে নির্যাতিত শিশুটির বাবা আওয়ামী লীগ নেতা আশরাফ সাঈদি মামুন, প্রতিবেশী রহম আলীসহ ৫ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরও কয়েকজনকে আসামি করে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। পুলিশ রাতেই অভিযান চালিয়ে মামুনকে গ্রেপ্তার করে। পরে বুধবার দুপুরে তাকে ময়মনসিংহ আদালতে সোপর্দ করা হয়।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ১৮ নভেম্বর উপজেলার কৃষ্ণপুর গ্রামের কৃষক রহম আলী (৫৬) প্রতিবেশী ওই শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। বিষয়টি জানাজানি হলে ঘটনা মীমাংসায় এগিয়ে আসেন উপজেলা শ্রমিক লীগের সাবেক সভাপতি ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আশরাফ সাঈদি মামুন। তিনি শিশুটির পরিবারকে আইনি সহায়তা না নেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন এবং অভিযুক্ত রহম আলীর কাছে ১ লাখ টাকা চেয়ে বিষয়টি মিটিয়ে ফেলার কথা বলেন। কিন্তু রহম আলী টাকা জোগাড় করতে না পারায় বিষয়টি স্থানীয়ভাবে ছড়িয়ে পড়ে। পরে স্থানীয় লোকজনের পরামর্শে মঙ্গলবার বিকেলে নির্যাতিত শিশুটির বাবা ধোবাউড়া থানায় গিয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

ধোবাউড়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. চাঁদ মিয়া বলেন, শিশু ধর্ষণচেষ্টার ঘটনাটি এক লাখ টাকায় নিষ্পত্তি করার অভিযোগ পেয়ে অভিযান চালিয়ে মামুনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

গ্রেপ্তার মামুনের বিরুদ্ধে আগে থেকেই মাদক ও অস্ত্র আইনে মামলা রয়েছে বলেও জানান চাঁদ মিয়া।

বিষয় : ধর্ষণচেষ্টা ময়মনসিংহ ধামাচাপা

মন্তব্য করুন