চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় শিকারির বন্দুকের গুলিতে মারুফুল ইসলাম (১৩) নামের এক স্কুল শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে। বুধবার রাতে উপজেলার চুনতি চান্দা বটতলী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত মারুফুল ইসলাম ওই এলাকার মৌলভী ফোরকানের পুত্র।  সে স্থানীয় পুঠিবিলা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র ছিল।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, জিতেন্দ্র বড়ুয়া নামের এক শিকারি মৌলভী ফোরকানের আঙ্গিনায় খড়ের গাদায় বন্দুকটি রেখেছিলেন। বুধবার রাতে সেটা বের করার সময় অসাবধানতাবশত গুলি বের হয়ে শিশুটির বুকে লাগে।

নিহতের বাবা মৌলভী ফোরকান জানান, মারুফ বাড়ির উঠানে বসে বই পড়ছিল। হঠাৎ করে গুলির শব্দ শুনে তিনি বাড়ি থেকে বের হয়ে দেখেন সে রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে পড়ে আছে। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মারুফকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের বড় ভাই মামুনুল ইসলাম জানান, জিতেন্দ্র বড়ুয়া প্রতিদিন রাতে বন্য শুকর শিকার করে বন্দুকটি তাদের বাড়ির খড়ের গাদায় রাখতেন। ঘটনার দিনও তিনি বন্দুক নিয়ে শিকারে বের হওয়ার  প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এ সময় অসাবধানতাবশত বন্দুক থেকে গুলি বের হয়ে মারুফের বুকে লাগে।

লোহাগাড়া থানার ভারপ্রপ্ত কর্মকর্তা মো. জাকের হোসাইন মাহমুদ বলেন, শিকারির গুলিতে শিশুটি গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা গেছে বলে আমরা প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছি। ঘটনার পর থেকে ওই শিকারি পলাতক রয়েছেন। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে এবং দোষী ব্যক্তিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। তিনি আরও বলেন, ধারণা করা হচ্ছে বন্দুকটি অবৈধ। বৃহস্পতিবার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য শিশুটির মরদেহ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান পুলিশের ওই কর্মকর্তা।