পাবনার সুজানগর উপজেলার জাকিয়া সুলতানা (১৮) নামের এক গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার সকালে সুজানগর পৌরসভার মসজিদপাড়া এলাকায় স্বামীর বাড়ি থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনার পর থেকে নিহতের স্বামী মিম হোসেন (২৮) পলাতক রয়েছেন। নিহতের পরিবারের দাবি, জাকিয়াকে হত্যার পর তার স্বামী লাশ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখেছে।

পুলিশ জানায়, জাকিয়া সুলতানা পাবনা সদর উপজেলার সাদুল্লাপুর ইউনিয়নের পাটোয়া গ্রামের  হাসান আলীর মেয়ে ও স্থানীয় দুবলিয়া ফজিল্লাতুনেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী ছিলেন। আর মিম হোসেন সুজানগর পৌরসভার মসজিদপাড়া এলাকার মো. মন্তাজ আলীর ছেলে এবং বেকার ছিলেন।

নিহতের মা রাশিদা খাতুন জানান, দীর্ঘদিন প্রেম করার পর সাত মাস আগে বিয়ে করে জাকিয়া ও মিম। বিয়ের পর জাকিয়া জানতে পারে তার স্বামী মিম মাদকসেবী। এ নিয়ে প্রায়ই দু’জনের মধ্যে ঝগড়া হতো। জাকিয়াকে মারধরও করতো মিম। এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার দিবাগত রাতের কোনো এক সময় জাকিয়াকে শ্বাসরোধে হত্যার পর তার লাশ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে পালিয়ে যায় মিম।

এদিকে স্থানীয়রা জানান, এর আগেও মিম প্রেম করে সুজানগরের এক মেয়েকে বিয়ে করেন। কিন্তু সে নেশাগ্রস্ত জানতে পেরে কয়েক মাস পরই মেয়েটি মিমকে ডিভোর্স দেয়।

সুজানগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বদরুদ্দোজা জানান, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা সদর হালপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট পাওয়ার পর জানা যাবে কীভাবে জাকিয়ার মৃত্যু হয়েছে। সে অনুযাযী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।