দিন পাঁচেক আগে বাকলিয়া সিটি করপোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভায় যাওয়ার পথে ওই এলাকার বির্জাখালে আবর্জনার স্তূপ ও কচুরিপানা দেখে থমকে দাঁড়িয়েছিলেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন। 

শুক্রবার সকালে চসিকের পরিচ্ছন্ন কর্মী ও সেবকদের নিয়ে গিয়ে নিজেই সেই খাল পরিস্কারে নেমে পড়েন। এ সময় ময়লা ভরা খালে ও আশপাশে মশার ওষুধ ছিটান তিনি। আবর্জনা পরিস্কার কার্যক্রম চলাকালে এলাকার গরিব-অসচ্ছল মানুষের মধ্যে মাস্ক ও সাবান বিতরণও করেন তিনি।

এ সময় চসিক প্রশাসক বলেন, 'খাল-নালা হলো পানি চলাচলের পথ। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক যে, অনেক নগরবাসী অসেচতনভাবে খালে-নালায় ময়লা-আবর্জনা ফেলছেন। পূর্ব বাকলিয়ার বির্জাখালেও গৃহস্থালি বর্জ্য, পচা পেঁয়াজ, ছেঁড়া টেবিলক্লথ, পলিথিন ও প্লাস্টিক বর্জ্যে ভরে গেছে। এই খাল এখন কচুরিপানা, ময়লা-আবর্জনায় ও মশার প্রজনন ক্ষেত্রে পরিণত হয়েছ। করোনা সংক্রমণকালে যদি মশার কামড়ে ডেঙ্গু, ম্যালেরিয়ার প্রকোপ বাড়ে, তাহলে পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করবে। আমি নগরবাসীর প্রতি আহ্বান জানাব, নিজের স্বার্থে, সবার স্বার্থে নালা-খাল, বাড়ির আঙিনা ও পুকুর জলাশয় পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখুন।