নাটোরের বড়াইগ্রামে স্কুলছাত্রী মাহমুদা খাতুন মুন্নী হত্যা মামলায় একজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার দুপুরে নাটোর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আব্দুর রহিম এ আদেশ দেন। দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তির নাম সোহেল সরকার।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালের ২০ ডিসেম্বর নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার উপলশহর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির ছাত্রী মাহমুদা খাতুন মুন্নী বাড়ির পাশে খেলতে যায়। এসময় প্রতিবেশী সোহেল সরকার মুন্নীকে বাড়িতে ডেকে নিয়ে যান। পরে তিনি মুন্নীর শরীরে থাকা স্বর্ণের চেইন, রিং নিয়ে শ্বাসরোধ করে শিশুটিকে হত্যা করে বাড়ির পাশে পুকুরে ফেলে দেন। পরের দিন মুন্নীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় মুন্নীর বাবা লোকমান সরকার বাদী হয়ে দুইজনের নামে হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার দীর্ঘ শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার বিচারক সোহেল সরকারকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন। পাশাপাশি অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় মামলার অপর আসামি ও সোহেল সরকারের মা সাজেদা বেগমকে খালাস দেন।