বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ 'মুজিববর্ষ' উদযাপন উপলক্ষে সীমান্তের প্রান্তিক জেলেদের স্বাবলম্বী করার প্রয়াসে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সারাদেশের হতদরিদ্র ১০০ মাঝির মধ্যে ১০০টি নৌকা বিতরণ করেছে।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজশাহী মহানগরীর টি-বাঁধ এলাকাসংলগ্ন পদ্মা নদীর পাড়ে হতদরিদ্র ২৫ মাঝির মধ্যে ২৫টি নৌকা, নৌকার পাল, গেঞ্জি ও লুঙ্গি বিতরণ করেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ও বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম বিজিবিএম (বার ) এনডিসি, পিএসসি। বর্ণিল আয়োজনে উৎসবমুখর পরিবেশে জেলেদের মাঝে নৌকা বিতরণ করা হয়। বিতরণের পর পদ্মার বুকে পাল তোলা নৌকা নিয়ে হাসিমুখে বাড়ি ফেরেন জেলেরা।

অনুষ্ঠানে রাসিক মেয়র বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আজন্ম লালিত স্বপ্ন সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ার কাজের অংশ হিসেবে রাজশাহীতে প্রান্তিক জেলেদের মাঝে নৌকা উপহার দিয়েছে বিজিবি, মুজিববর্ষে বঙ্গবন্ধুকে স্মরণে এটি অনন্য একটি উদ্যোগ। বিজিবি যে সীমান্তবর্তী এলাকার মানুষের কল্যাণে আন্তরিক, তা এ থেকেই প্রমাণ হলো। আমাদের এবং দেশকে সুরক্ষিত রাখতে দুর্গম এলাকায় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করেন বিজিবি সদস্যরা। এই ধারাবাহিকতা বজায় রেখে আগামীর জন্য বিজিবির উত্তরোত্তর সফলতা কামনা করছি।

সাফিনুল ইসলাম মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মদানকারী জাতির সূর্যসন্তানদের শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ দেশের গরিব, দুঃখী ও মেহনতি মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়ে একটি সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন। জাতির পিতার সোনার বাংলা বিনির্মাণের স্বপ্ন বাস্তবায়নে সীমান্ত রক্ষার পাশাপাশি বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ সব সময় সীমান্তবর্তী হতদরিদ্র ও অসহায় প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর ভাগ্যোন্নয়নে কাজ করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় শত নৌকায় জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনে বিজিবি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শতবর্ষের সমার্থক হিসেবে ১০০টি নৌকা প্রান্তিক জেলেদের স্বাবলম্বী করার প্রয়াসে প্রদান করা হলো। এ নৌকা প্রদান অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সীমান্তবর্তী প্রান্তিক জেলেরা সঠিকভাবে জীবিকা নির্বাহ করবে এবং স্বাবলম্বী হয়ে অন্যদের স্বনির্ভর হওয়ার প্রেরণা জোগাবে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিজিবি রিজিয়ন সদর দপ্তরের রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল কায়সার হাসান মালিক, এনডিসি, পিএসসি; রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার হুমায়ন কবীর খন্দকার, রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি আব্দুল বাতেন, বিপিএম, পিপিএম; রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক, বিজিবি রাজশাহী সেক্টর কমান্ডার কর্নেল তুহিন মাসুদ, রাজশাহী ব্যাটালিয়নের (১-বিজিবি) অধিনায়ক লে. কর্নেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদসহ রাজশাহী জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল, পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হাসান প্রমুখ।