ঢাকা মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

রিপনের শরীরে এলোপাতাড়ি ছুরি চালায় খুনিরা, ভিডিও ভাইরাল

রিপনের শরীরে এলোপাতাড়ি ছুরি চালায় খুনিরা, ভিডিও ভাইরাল

রিপন হোসেনকে পেটাচ্ছে সাত যুবক। ছবি: ভিডিও থেকে নেওয়া

যশোর অফিস

প্রকাশ: ১৭ অক্টোবর ২০২৩ | ১৬:৩৬ | আপডেট: ১৮ অক্টোবর ২০২৩ | ০৪:২৭

সাত যুবক শহরের ব্যস্ততম সড়কের ওপরে একজনকে পেটাচ্ছে। দুইজনের হাতে রয়েছে চাকু। তারা লোকটির শরীরে চাকু দিয়ে এলোপাতাড়ি আঘাত করছে। পরে হামলাকারীরা পালিয়ে গেলে পথচারীরা আহত যুবককে হাসপাতালে নেওয়ার জন্য গাড়িতে তুলছেন। নির্মম এই হত্যাকাণ্ডের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। 

সোমবার রাত ৮টার দিকে যশোর শহরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সড়কের রেলগেট এলাকায় এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। নিহতের নাম রিপন হোসেন (৩০)। তাঁর বাড়ি শহরের খড়কি কবরস্থান এলাকায়; পেশায় লেদমিস্ত্রি। পাশাপাশি তিনি যুবলীগের রাজনীতি করতেন। 

নিহতের পরিবারের অভিযোগ, রিপনকে যারা হত্যা করেছে তারা এলাকার চিহ্নিত ও এক সময়ের রাজনৈতিক সহকর্মী। এ ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত মামলা করেনি পরিবার। তবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য যশোর পৌরসভার এক কাউন্সিলর, পৌর আওয়ামী লীগ নেতাসহ পাঁচজনকে হেফাজতে নেয় পুলিশ। পরে তাদের ছেড়েও দেওয়া হয়েছে। 

পুলিশ ও রিপনের স্বজনদের সূত্রে জানা গেছে, রিপন যশোর রেলস্টেশন এলাকার লেদ কারখানায় কাজ করতেন। ঘটনার দিন বিকেলে স্ত্রী ও আট মাস বয়সী সন্তানকে শ্বশুরবাড়িতে রেখে তিনি বাড়ি আসেন। এর পর খাবার খেয়ে সন্ধ্যায় শহরে বের হন। রাত সাড়ে ৮টার দিকে যশোর রেলস্টেশন এলাকা থেকে বাড়িতে ফেরার পথে রেলগেট এলাকায় তাঁর ওপর হামলা হয়। 

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে খড়কিতে রিপনের বাড়ি গিয়ে দেখা যায়, প্রতিবেশী ও স্বজনের ভিড়। রিপনের মা রূপবান বেগম শোকে কাতর। প্রতিবেশী ও স্বজনদের জড়িয়ে ধরে তিনি কেঁদেই যাচ্ছেন। তিনি বলেন, রিপন রাজনীতি ছেড়ে দিয়েছিল। লেদে কাজ করেই সংসার চালাত। খড়কি এলাকার সন্ত্রাসী ও যুবলীগ নেতা আক্তারুজ্জামান ডিকুর সঙ্গে এক সময় রাজনীতি করত। রিপন রাজনীতি ছেড়ে দেওয়ায় তাদের মধ্যে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। 

রিপনের বোন নিলুফার ইয়াসমিনের দাবি, ডিকু বাহিনীর লোকজন রিপনকে হত্যার হুমকি দিয়েছিল। পিচ্চি রাজা, আসিফ, নিশান, দেলোয়ার হোসেন দেলা, সাকলাইন হোসেন, ইমন হোসেন, ফরিদ হোসেন, ওমর আলী ও শরীফ তাঁকে কুপিয়ে হত্যা করেছে।

কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আধিপত্য বিস্তার নিয়ে এ হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে।  

আরও পড়ুন

×