ঢাকা বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

নারায়ণগঞ্জে বিএনপির ২০ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার

নারায়ণগঞ্জে বিএনপির ২০ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার

ফাইল ছবি

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

প্রকাশ: ১৮ অক্টোবর ২০২৩ | ১৩:২৬ | আপডেট: ১৮ অক্টোবর ২০২৩ | ১৩:৫৯

নারায়ণগঞ্জে বিএনপির ২০ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। নাশকতার অভিযোগে ও বিস্ফোরক আইনে বিভিন্ন থানায় করা পুরোনো মামলায় তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

তবে এসব অভিযান নিয়মিত কার্যক্রমের অংশ বলে দাবি করেন জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) চাইলাউ মারমা। তিনি বলেন, পুরনো বিস্ফোরক আইন ও নাশকতার অভিযোগে থাকা মামলাগুলোর ফলোআপ নিতে পুলিশ বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়েছে। এসব অভিযানে ২০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তার আসামিদের মধ্যে ১৪ জনের নাম পাওয়া গেছে। তারা হলেন- রূপগঞ্জ উপজেলার দাউদপুর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি হোসেন মুন্সি, ফতুল্লা থানা যুবদলের আহ্বায়ক মাসুদুর রহমান মাসুদ, সোনারগাঁয়ের সাদিপুর ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ড যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক রাসেল মিয়া, নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের সাবেক সদস্য মো. হারুন, যুবদল কর্মী কাউসার আহমেদ রানা, মো. মেহেদী, মো. জাহিদ, সোনারগাঁয়ের মোগরাপাড়া ইউনিয়ন যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক রাকিব হাসান, আড়াইহাজার সাতগ্রাম ইউনিয়ন ৬ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী মিয়া, একই ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা ফরহাদ খন্দকার, রূপগঞ্জের চনপাড়া ২ নম্বর ওয়ার্ড যুবদলের সহ-সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, ৯ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম বাবু, ফতুল্লার বিএনপি নেতা হারুনুর রশিদ হারুন, নাসিকের ৭ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মো. খোরশেদ আলম।

তবে রাজধানীতে বিএনপির সমাবেশে যেতে বাধা দিতে রাতভর নেতাকর্মীদের বাড়িতে এসব অভিযান চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ করেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক খোকন। তিনি বলেন, প্রতিবারই কোন কর্মসূচির পূর্বে এই কাজটি করে পুলিশ। বিরোধীমত দমনে সরকার পুলিশকে ব্যবহার করছে।

এদিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক ও ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ পুরাতন সড়কে রাজধানীর প্রবেশমুখগুলোর অন্তত সাতটি স্থানে তল্লাশি চৌকি স্থাপন করা হয়েছে বলে জানায় পুলিশ। ভোর থেকে এসব স্থানে ঢাকামুখী যানবাহন থামিয়ে তল্লাশি চালাতে দেখা গেছে। এইসব চেকপোস্ট থাকলেও এসব স্থান থেকে কাউকে গ্রেপ্তার বা আটকের খবর পাওয়া যায়নি।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মৌচাক মোড়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার বসানো তল্লাশি চৌকিতে থামানো হয় শ্যামলী পরিবহনের একটি বাস। এই বাসের যাত্রী মো. মাসুদ বলেন, তারা কক্সবাজার থেকে ঢাকার দিকে যাচ্ছেন। ঢাকায় প্রবেশ করার সময় মহাসড়কে অন্তত তিনটি স্থানে তাদের বাস থামিয়ে তল্লাশি চালানো হয়েছে। যাত্রীদের ব্যাগও তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ।

তিনি বলেন, আমরা কে কোথায় যাচ্ছি, কেন যাচ্ছি এবং বাস কোথা থেকে এসেছে এসব জানতে চায়। তবে জিজ্ঞাসাবাদে সন্দেহজনক কিছু না পাওয়াতে আবার ছেড়েও দেওয়া হয়।

জেলা বিএনপির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দিন বলেন, বিএনপি নেতাকর্মীরা আগেই ব্যাপক সংখ্যায় ঢাকায় গিয়ে অবস্থান নিয়েছে। মামলা, হামলা হয়রানি করে বিএনপি নেতাকর্মীদের আটকে রাখার দিন আর নেই। 

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তফা বলেন, কোনো ব্যক্তি নাশকতার উদ্দেশ্যে গাড়িতে বিস্ফোরক দ্রব্য বহন করছে কিনা সে বিষয়ে পুলিশ সতর্ক রয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত আমদের এই তল্লাশি চৌকি থাকবে।

আরও পড়ুন

×