ঢাকা বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

প্রতিমা থেকে ময়ূরপুচ্ছ ছেঁড়ার অভিযোগে আটক ১

প্রতিমা থেকে ময়ূরপুচ্ছ ছেঁড়ার অভিযোগে আটক ১

নরসিংদী প্রতিনিধি

প্রকাশ: ১৮ অক্টোবর ২০২৩ | ১৬:৪২ | আপডেট: ১৮ অক্টোবর ২০২৩ | ১৬:৪২

নরসিংদীর শিবপুরে দুর্গা প্রতিমা থেকে ময়ূরপুচ্ছ ছিঁড়ে নেওয়ার সময় মনির হোসেন নামে একজনকে পুলিশে দেওয়া হয়েছে। বুধবার সকালে দুলালপুর ইউনিয়নের ভিটি চিনাদী গ্রামের ভিটি চিনাদী সার্বজনীন দুর্গা মন্দিরে এ ঘটনা ঘটে।

আটক মনির (৪০) একই গ্রামের বাসিন্দা। তিনি মানসিক ভারসাম্যহীন বলে দাবি করেছেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান।

মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক দিলীপ চন্দ্র বর্মণ বলেন, ‘মঙ্গলবার রাতে প্রতিমা তৈরির কাজ শেষ হওয়ায় সারা রাত পাহারা দিয়েছি। বুধবার সকালে নাস্তা করার জন্য বাড়িতে গেলে আমার কাছে প্রতিমা ভাঙার খবর আসে। পরে সেখানে গিয়ে দেখি দুর্গা প্রতিমার সঙ্গে থাকা অসুর প্রতিমার হাতে বড় ফাটল আর কার্তিক প্রতিমার বাহন ময়ূরের পুচ্ছ ছেঁড়া।’ 

মনির হোসেনই যে প্রতিমা ভেঙেছেন তা কেউ দেখেছে কি-না, জানতে চাইলে দিলীপ বলেন, ‘ময়ূরপুচ্ছগুলো ভেঙে নিয়ে যাওয়ার সময় আমার কোষাধ্যক্ষ মঙ্গল বর্মণ তাঁকে জিজ্ঞাসা করেন এগুলো কেন ভেঙে এনেছেন? উত্তরে মনির জবাব দেন, “এনেছি ভালো করেছি, আমার লাগবে এগুলো” বলে চলে যান তিনি।

শিবপুর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বিপ্লব চক্রবর্তীর দাবি, সকাল সাড়ে ৯টা থেকে ১০টার মধ্যে মনির হোসেন মন্দিরে ঢুকে দুর্গা প্রতিমার সঙ্গে থাকা অসুর প্রতিমার হাত ফাটিয়ে কার্তিক প্রতিমার ময়ূরপুচ্ছ ভেঙে নিয়ে যান। পরে গ্রাম পুলিশ তাঁকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে। 

দুলালপুর ইউপি চেয়ারম্যান মাহফুজুল হক শামীম মোল্লা বলেন, ‘ঘটনাস্থলে এসে জানতে পারি মানসিক ভারসাম্যহীন মনির নামে এক ব্যক্তি প্রতিমার সঙ্গে থাকা ময়ূরপুচ্ছ আনতে সেখানে যান। স্থানীয় সনাতন ধর্মাবলম্বীরা তাঁকে এগুলো নিতে বাধা দিলে একটি প্রতিমার হাতে ফাটল ধরে। পরে স্থানীয়রা তাঁকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে।’

শিবপুর উপজেলার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ তালুকদার বলেন, ‘প্রতিমা তো ভাঙে নাই, সে ময়ূরপুচ্ছ আনতে সেখানে গিয়েছিল। ময়ূরপুচ্ছ ছেঁড়ার সময় তাঁর আঘাতে একটি প্রতিমার হাত হালকা ফেটে গেছে। তাঁকে আটক করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন

×