ঢাকা সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪

নরসিংদীতে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষে গুলি, আটক ৬০

নরসিংদীতে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষে গুলি, আটক ৬০

নরসিংদী প্রতিনিধি

প্রকাশ: ২৮ অক্টোবর ২০২৩ | ১৪:০৬ | আপডেট: ২৮ অক্টোবর ২০২৩ | ১৪:০৬

ঢাকার নয়াপল্টনে বিএনপির মহাসমাবেশে যাওয়ার পথে নরসিংদী রেলওয়ে স্টেশনে রায়পুরা উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদকসহ অন্তত ৬০ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার সকাল ৭টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত ঢাকাগামী তিতাস কমিউটার, আন্তঃনগর এগারসিন্দুর ট্রেনে তল্লাশি চালিয়ে ও স্টেশন এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়। 

আটকের সময় বিএনপি নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট, পাথর নিক্ষেপ করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ৩৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়লে উভয়পক্ষে সংঘর্ষ বাধে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ভোর থেকে নরসিংদী রেলওয়ে স্টেশনে বিপুল সংখ্যক পুলিশ অবস্থান নেয়। সকাল পৌনে ৮টায় তিতাস কমিউটার নরসিংদী রেলওয়ে স্টেশনে এসে থামলে পুলিশ ট্রেনে তল্লাশি চালায়। যাদের সন্দেহ হয়, তাদের ট্রেন থেকে থামিয়ে পুলিশ হেফাজতে নেয়। এসময় রায়পুরা উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান খোকনের নেতৃত্বে বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল ও ওলামাদলের নেতাকর্মীরা ট্রেনে উঠার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। বাধাপ্রাপ্ত হয়ে তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট, পাথর নিক্ষেপ করতে থাকলে উভয়পক্ষে সংঘর্ষ বাধে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ৩৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে। এতে বিএনপির নেতাকর্মীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এ সময় পাথরের আঘাতে তিন পুলিশ সদস্য আহত হন। 

এ ঘটনায় পুলিশ রায়পুরা উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান খোকন, জেলা জাতীয়তাবাদী ওলামা দলের সাধারণ সম্পাদক নূরুজ্জামান, জেলা কৃষকদলের যুগ্ম আহ্বায়ক রুহুল আমিন, জেলা জিয়া মঞ্চের সভাপতি ও সাবেক ইউপি সদস্য কামাল হোসেন, রায়পুরা উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুর রাজ্জাকসহ অন্তত ৬০ জনকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে নরসিংদী সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম ভূঁইয়া সমকালকে বলেন, বিএনপির শতাধিক কর্মী ট্রেনে উঠতে না পেরে পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর ছুড়লে সংঘর্ষ বাধে। এ সময় ৩৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।

ওসি আরও বলেন, ঘটনাস্থল থেকে ৬০ জনকে আটক করে। এ ঘটনায় তিন পুলিশ সদস্য আহত হন। 

আরও পড়ুন

×