ঢাকা বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

চুরির অপবাদদিয়ে মাদ্রাসায় ছাত্রকে নির্যাতন

চুরির অপবাদদিয়ে মাদ্রাসায় ছাত্রকে নির্যাতন

দোহার (ঢাকা) প্রতিনিধি

প্রকাশ: ২৮ অক্টোবর ২০২৩ | ১৫:০৪ | আপডেট: ২৮ অক্টোবর ২০২৩ | ১৫:০৪

টাকা চুরির অপবাদ দিয়ে ঢাকার দোহারে একটি মাদ্রাসায় ছাত্রকে নির্যাতন চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার শিলাকোঠা এমদাদুল উলুম মাদ্রাসায় নির্যাতনের শিকার হয় মো. রেদুয়ান (১৩) নামের ওই কিশোর। এ ঘটনায় তার মা বাদী হয়ে দোহার থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

রেদুয়ান উপজেলার চর কুশাই চর গ্রামের প্রবাসী হাসমত শরিফের ছেলে। তাঁর অভিযোগ, ঘটনার সকালে মাদ্রাসার মাঠ পরিষ্কার করছিল সে। দুপুরের দিকে কাজ শেষ করে ভবনের দোতলায় আসে। এ সময় হেফজ বিভাগের শিক্ষক আশরাফুল তাকে বলেন, ‘তোর বালিশের নিচে ২০০ টাকা পেয়েছি। তুই টাকা চুরি করেছিস।’ বলেই রেদুয়ানকে বেত দিয়ে পেটাতে থাকেন ওই শিক্ষক।

এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দিয়েছেন রেদুয়ানের মা রাজিয়া বেগম। তাঁর মোবাইল ফোনে সকালে কল দিয়ে মাদ্রাসায় যেতে বলেন শিক্ষক আশরাফুল। তিনি যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ছেলে দৌড়ে এসে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে থাকে। রেদুয়ানের কাছ থেকে বিস্তারিত জেনে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা করিয়েছেন। 

রাজিয়া বলেন, ‘ছেলে কোনো অপরাধ করলে তারা আমাকে জানাতে পারত। কিন্তু এভাবে মারল কেন? আমি এর বিচার চাই।’

এ বিষয়ে বক্তব্য নিতে শনিবার বিকেলে ওই মাদ্রাসায় গেলে তথ্য সংগ্রহে বাধা দেন কুসুমহাটি ইউনিয়ন পরিষদের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য হুমায়ুন মোল্লা। পরে মাদ্রাসার মুফতি ইমরান হোসেন বলেন, ‘আমাদেরই ছাত্র, আমাদেরই শিক্ষক। যা হওয়ার হয়ে গেছে! পত্রিকায় দিয়ে আমাদের সুনাম নষ্ট করবেন না। যা করার আমরাই করব।’

দোহার থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মিন্টু লস্কর বলেন, বৃহস্পতিবার বিকেলে রেদুয়ানের মা লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। বিষয়টির তদন্ত চলছে।

আরও পড়ুন

×