ঢাকা মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

ককটেল ফাটিয়ে পালাতে গিয়ে জামায়াত-বিএনপির ১০ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার

ককটেল ফাটিয়ে পালাতে গিয়ে জামায়াত-বিএনপির ১০ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার

গ্রেপ্তার নেতাকর্মীরা। ছবি-সমকাল

আলমডাঙ্গা (চুয়াডাঙ্গা) সংবাদদাতা

প্রকাশ: ০২ নভেম্বর ২০২৩ | ০৫:৩৯ | আপডেট: ০২ নভেম্বর ২০২৩ | ১১:৪১

ককটেল ফাটিয়ে পালানোর সময় জামায়াত-বিএনপির দশ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বুধবার রাত ৮টার দিকে আলমডাঙ্গা উপজেলার কুমারী ইউনিয়নের শ্যামপুর-গোপীবল্লভপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। 

গ্রেপ্তাররা হলেন- মো. জামির আলী (৫৫), মো. মিনারুল ইসলাম (৪২), মো. শাহজান আলী (৪৩), মো. মাগরিবুর রহমান (৪৮), মো. মেহেদী হাসান (৪৮), মো. হাবিবুর রহমান (৬৫), মো. জুবায়ের (৫৮),  মো. আনারুল ইসলাম (৩৭), মো. মুরাদ আলী (৩৬), মো. নুর ইসলাম (৫৮)। গ্রেপ্তার সব আসামিরা জামায়াত-বিএনপির সক্রিয় সদস্য। এছাড়া তাদের বিরুদ্ধে ইতোপূর্বে নাশকতা পরিকল্পনার মামলাও রয়েছে। 

পুলিশ জানায়, বুধবার রাতে উপজেলার কুমারী ইউনিয়নের শ্যামপুর-গোপীবল্লভপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে সমবেত হন বিএনপি ও জামায়াত নেতাকর্মীরা। যানবাহন ভাঙচুর, বিদ্যুৎ অফিস ও খাদ্যগুদামে অগ্নিসংযোগ করে জনমনে আতঙ্ক ও অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির প্রস্তুতি নেন তারা। খবর পেয়ে অভিযান চালায় পুলিশ। তবে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ককটেল ফাটিয়ে দৌড়ে পালাতে থাকেন নেতাকর্মীরা। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে জামায়াত-বিএনপির ১০ জন নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এছাড়া অনেক নেতাকর্মীরা পালিয়ে যায়। 

পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে কালো স্কচটেপে মোড়ানো ৯টি হাত বোমা, বিস্ফোরিত বোমার ৮টি লোহার জালের কাঠি, দুই টুকরা বিস্ফোরিত বোমার টিনের অংশ, ১৮টি বাঁশের লাঠি উদ্ধার করে।

আলমডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার নাথ বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে জামায়াত-বিএনপির এই ১০ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়।

আরও পড়ুন

×