ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩

গাজীপুরে ফের পুলিশ-শ্রমিক সংঘর্ষ, আহত ১০

টিয়ার শেল, সাউন্ড গ্রেনেড ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ

গাজীপুরে ফের পুলিশ-শ্রমিক সংঘর্ষ, আহত ১০

ছবি- ভিডিও থেকে নেওয়া

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি

প্রকাশ: ০৬ নভেম্বর ২০২৩ | ১৪:০৮ | আপডেট: ০৬ নভেম্বর ২০২৩ | ২০:১৬

গাজীপুরের কোনাবাড়ী ও কাশিমপুর শিল্পাঞ্চলে সোমবার দুপুরে আবার পুলিশ ও পোশাক শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষ এবং ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়েছে। পুলিশ শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করতে অর্ধশতাধিক টিয়ার গ্যাসের শেল, সাউন্ড গ্রেনেড ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এ সময় শ্রমিকরাও পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোড়ে।

তবে সন্ধ্যার পর অতিরিক্ত পুলিশ ও বিজিবি মোতায়েন করায় শ্রমিকরা মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়ক থেকে সরে যান।

জানা গেছে, মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে গতকাল দুপুরে মণ্ডল গ্রুপ, ডিবিএল গ্রুপসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের শতাধিক শ্রমিক কোনাবাড়ী বাজার এলাকায় মহাসড়ক অবরোধের চেষ্টা করেন। খবর পেয়ে কয়েক প্লাটুন বিজিবি, শিল্প পুলিশ, থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের ধাওয়া দিয়ে সরিয়ে দেয়। একই সময়ে কাশিমপুর-কোনাবাড়ী সড়কের  জিতার মোড়, সারদাগঞ্জ এলাকায় শ্রমিকরা সড়ক অবরোধ করেন। পুলিশ শ্রমিকদের সড়ক থেকে সরে যেতে অনুরোধ করে। এক পর্যায়ে শ্রমিকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়লে সংঘর্ষ বাধে। পুলিশ শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করতে অর্ধশতাধিক টিয়ার শেল, সাউন্ড গ্রেনেড ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এ সময় ১০-১২ জন শ্রমিক আহত হন। পরে কয়েক প্লাটুন বিজিবি ঘটনাস্থলে গেলে শ্রমিকরা আঞ্চলিক সড়ক ছেড়ে নিরাপদে চলে যান।

বিকেলের দিকে আন্দোলনরত শ্রমিকরা ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক অবরোধ করার চেষ্টা করেন। সেখানেও পুলিশ ও বিজিবি ধাওয়া দিয়ে তাদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দেয়।

কয়েকজন শ্রমিক বলেন, টানা ৯ দিন অবরোধ, আন্দোলনের কারণে শ্রমিক সংগঠনের নেতা ও সরকারের প্রতিনিধিরা বেতন বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি দিলে আমরা কাজে ফিরে যাই। কিন্তু সরকার ও সংগঠনের নেতারা বেতন বাড়ানোর নামে কালক্ষেপণ করায় বাধ্য হয়ে আবার তাদের আন্দোলনে নামতে হচ্ছে।

এদিকে শ্রমিক অসন্তোষের কারণে গতকাল কোনাবাড়ী-কাশিমপুর শিল্পাঞ্চলের সব পোশাক কারখানায় এক দিনের ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। বিভিন্ন কারখানা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, শ্রমিক আন্দোলন যাতে সংঘাতে পরিণত না হয় তাই শিল্পাঞ্চলের সব কারখানায় সোমবার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়।

কোনাবাড়ী থানার এসআই আবু সাইদ বলেন, কোনাবাড়ী এলাকায় শ্রমিকরা দুই দফায় মহাসড়ক অবরোধের চেষ্টা করেন। বিজিবি, শিল্প পুলিশ, থানা পুলিশ লাঠিচার্জ করে মহাসড়ক থেকে তাদের সরিয়ে দিয়েছে। কোনাবাড়ী এখন শান্ত থাকলেও বিভিন্ন পয়েন্টে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

আরও পড়ুন