ঢাকা মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

খেলাকে কেন্দ্র করে ইবিতে দফায় দফায় সংঘর্ষ

খেলাকে কেন্দ্র করে ইবিতে দফায় দফায় সংঘর্ষ

ছবি: সংগৃহীত

ইবি প্রতিনিধি

প্রকাশ: ২২ নভেম্বর ২০২৩ | ১১:৫৬ | আপডেট: ২২ নভেম্বর ২০২৩ | ১২:০৪

একই মাঠে খেলাকে কেন্দ্র করে ফুটবল ও ক্রিকেট খেলোয়াড়দের মাঝে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে জড়িয়েছেন শাখা ছাত্রলীগের কর্মীরাও। ঘটনায় প্রায় ১৫ জন আহত হয়েছেন। মঙ্গলবার বিকেলে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুটবল মাঠে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র মতে, ফুটবল খেলা চলাকালীন মাঠের একপাশে ক্রিকেট খেলছিলেন মার্কেটিং বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এ সময় তাদের বল একাধিকবার ফুলবল মাঠে প্রবেশ করলে তাদের খেলা বন্ধ করতে বলেন ফুটবলার জিয়ন ও বিজন। এ সময় মার্কেটিং বিভাগের তুর্যের সাথে বাকবিতাণ্ডা হয় তাদের। পরে বিজন তাদের স্ট্যাম্প তুলে ফেললে দু’দলের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়। হাতাহাতির একপর্যায়ে তুর্য হল থেকে তার বন্ধুদের ডেকে আনলে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। এ সময় তাদেরকে হাতে লাঠিসোটা ও বাঁশ নিয়ে হামলা করতে দেখা যায়। 

ঘটনায় মার্কেটিং বিভাগের তূর্য খান, আলী রিয়াজ ও হাফিজ, বাংলা বিভাগের ধ্রুব, ফিন্যান্স বিভাগের জাকি ও সিয়াম, অর্থনীতি বিভাগের সাদি ও ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের মাহমুদুল সাফি আহত হন। অন্যদিকে ফুটবলার ইসলামের ইতিহাস বিভাগের জিয়ন সরকার, কবিরুল ইসলাম এবং ল’ অ্যান্ড ল্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিভাগের বিজন রায় আহত হন। এদের মধ্যে তুর্যের অবস্থার অবনতি হলে তাকে কুষ্টিয়া মেডিকেলে পাঠানো হয়। সংঘর্ষে জড়িত সকলেই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মী বলে জানা গেছে।

এ দিকে দুপক্ষের আহতদের চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে গেলে সেখানে পুনরায় হাতাহাতি শুরু হয়। পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরিয়াল বডি ও থানা পুলিশের সহায়তায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। 

আহত শিক্ষার্থী মাহমুদুল সাফি বলেন, তারা (ফুটবল খেলোয়াররা) মাঠের অন্য পাশ থেকে বাঁশ নিয়ে এসে আমাদের ওপর হামলা করে। উদ্দেশ্যমূলকভাবেই তারা এই হামলা করেছে। পরে আমাদের বন্ধুরা এলে তাদেরও মারধর করা হয়।

চিকিৎসা কেন্দ্রের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. খুরশিদা জাহান বলেন, আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

তবে মারামারির ঘটনা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক শাহাদৎ হোসেন আজাদ বলেন, ঘটনায় জড়িতদের গ্রুপিং এবং বাইরের ইন্দন আছে কিনা সেটা খতিয়ে দেখে আমরা সিদ্ধান্ত নেব।

আরও পড়ুন

×