ঢাকা বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

মারধর করে ২০ লাখ টাকার কাঁকড়া ছিনতাই বনরক্ষীর

মারধর করে ২০ লাখ টাকার কাঁকড়া ছিনতাই বনরক্ষীর

মোংলা প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলন করা হয়। ছবি: সমকাল

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

প্রকাশ: ২৩ নভেম্বর ২০২৩ | ০৪:৫৩

সুন্দরবনে জেলেদের মারধর করে বিশ লাখ টাকার কাঁকড়া ছিনিয়ে নেওয়া ও ৬ জেলেকে আটকের অভিযোগ উঠেছে বনরক্ষীদের বিরুদ্ধে। গত মঙ্গলবার ভোররাতে চাঁদপাই রেঞ্জের নন্দবালা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন ভুক্তভোগী জেলেরা। 

বুধবার দুপুরে মোংলা প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে জেলে তরিকুল, ওমর গাজী, আলমগীর ও রাজিব শেখ জানান, বন বিভাগের অনুমতিপত্র (পাস/পারমিট) সংগ্রহ করে গত ১২ নভেম্বর ৪০ জেলে ১২টি নৌকা নিয়ে সুন্দরবনের দুবলা এলাকায় কাঁকড়া আহরণ করতে যান। গত ২১ নভেম্বর রাতে ৪টি নৌকায় ৪০ মণ কাঁকড়া নিয়ে লোকালয়ে ফিরে আসছিল জেলে দল। এ সময় পশুর নদের নন্দবালা এলাকায় পৌঁছালে চাঁদপাই ফরেস্ট স্টেশন কর্মকর্তা আনিসুর রহমানের নেতৃত্বে ১০/১২ জন বনরক্ষী ও বহিরাগত জেলেদের নৌকা আটক করে। তখন জেলেরা তাদের বৈধ অনুমতিপত্র দেখালেও বনরক্ষীরা জেলেদের কাছ থেকে অনৈতিকভাবে অর্থ দাবিতে বাগবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে বনরক্ষীরা জেলেদের মারধর ও নৌকা ভাঙচুর করে এবং জেলে ইউনুছ আলী (৫৫), আজিজুল (২২), রাজ্জাক (৩০), জাহিদুল (২৩), মিজান (৩০) ও তোফাজ্জল (৩৫) নামে ৬ জেলেকে আটক করে।

এ সময় আটক জেলেদের নৌকা ও আহরিত কাঁকড়া ছিনিয়ে নেওয়া হয়। বনরক্ষীদের হামলা ও মারধরের সময় রুমি শেখ ও আলমগীর নামে দুই জেলে নিখোঁজ হন। তারা জানান, জেলেদের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেওয়া ৪০ মণ কাঁকড়ার বাজার দাম প্রায় ২০ লাখ টাকা।
জেলেরা অভিযোগ করে বলেন, ঘুষ ও অতিরিক্ত অর্থ হাতিয়ে নিতে বনরক্ষীদের হাতে জেলেদের নির্যাতন ও হয়রানি এখন নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনায় পরিণত হয়েছে।

চাঁদপাই ফরেস্ট স্টেশন কর্মকর্তা আনিসুর রহমান বলেন, জেলেদের কাঁকড়া আহরণে বৈধতা থাকলেও অবৈধ পরিবহন ব্যবস্থার কারণে কাঁকড়া, ৪টি নৌকা, একটি ট্রলারসহ ৬ জেলেকে আটক করা হয়েছে। জেলেদের মারধর ও উৎকোচ দাবির ঘটনা অস্বীকার করেন তিনি। এ ছাড়া দুই জেলে নিখোঁজ থাকার বিষয়টি তিনি অবগত নন বলে জানান। 

পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক রানা দেবের ভাষ্য, কাঁকড়া অবৈধভাবে পরিবহনের দায়ে জেলেদের ইঞ্জিনচালিত ট্রলার, নৌকা ও কাঁকড়া আটক করা হয়েছে। জেলেরা বন বিভাগের অফিস ও জলযানে ইটপাটকেল ছুঁড়ে ব্যাপক ক্ষতিসাধন করেছে বলে দাবি করেন তিনি। 

সুন্দরবন খুলনা সার্কেলের বনসংরক্ষক মিহির কুমার দো বলেন, এ বিষয়ে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। 

আরও পড়ুন

×