সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কেউ বিশৃঙ্খলা করলে কঠোরভাবে দমন করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর। 

তিনি বলেন, যেসব কর্মকাণ্ড নির্বাচন সহিংস করতে পারে, সেগুলো আগাম প্রতিরোধের চেষ্টা চলছে। কাউকেই নির্বাচনী সহিংসতা করতে বা আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটাতে দেওয়া হবে না।

রোববার নগর পুলিশের সদর দপ্তর দামপাড়া পুলিশ লাইনের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। নির্বাচন সামনে রেখে পুলিশি টহল এবং চেকপোস্টের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, 'বহিরাগত কোনো অস্ত্রধারীকে নগরে অবস্থান করতে দেওয়া হবে না। এ জন্য বিভিন্ন বাসাবাড়িতে নজরদারি জোরদার করা হয়েছে। হোটেলগুলোতেও নিয়মিত তল্লাশি চালানো হচ্ছে। যারা ঘোষিত অপরাধী ও বিভিন্ন মামলার পরোয়ানাভুক্ত আসামি, তাদের নজরদারির মধ্যে রাখা হয়েছে। অতীতের সংঘাতের বিষয়গুলো বিবেচনা করে আমরা সব ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছি।'

নির্বাচনের আগে অস্ত্র উদ্ধার প্রসঙ্গে সিএমপি কমিশনার বলেন, 'চট্টগ্রামে দুই হাজার ৪৭৭টি বৈধ অস্ত্রের খবর পুলিশের কাছে আছে। কখন অস্ত্রগুলো জমা দিতে হবে, এ বিষয়ে নির্দেশনা দেবে নির্বাচন কমিশন। আমরা কোনো পর্যায়ে অস্ত্রের ব্যবহার আশা করি না। আমাদের চেষ্টা থাকবে, কোনো ধরনের অস্ত্রের ব্যবহার বা সংঘাত যাতে ছড়িয়ে না পড়ে।' অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে নিয়মিত তল্লাশি অব্যাহত আছে বলে জানান তিনি।

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ৯ হাজার পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে বলেও জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে। একই সঙ্গে ওয়ার্ডভিত্তিক ও থানাভিত্তিক ফোর্স থাকবে। পাশাপাশি রিজার্ভ ফোর্স রাখা হবে। ডিবি, কাউন্টার টেররিজম এবং সোয়াট টিমও টহলে থাকবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন নগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার আমেনা বেগম, এস এম মোস্তাক আহমেদ খান, শ্যামল কুমার পালিত ও উপপুলিশ কমিশনার আমীর জাফর।

বিষয় : চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন সিএমপি

মন্তব্য করুন