জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ‘মুজিববর্ষে’ গৃহহীন ও ভূমিহীনদের ঘর উপহার দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশের মানুষের জন্য এটি সবচেয়ে বড় উৎসব। এর চেয়ে বড় উৎসব বাংলাদেশের মানুষের হতে পারে না।

শনিবার তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রায় ৭০ হাজার গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারের হাতে ঘরের চাবি বুঝিয়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। এ সময় একইসঙ্গে প্রতিটি পরিবারের জন্য বরাদ্দ করা দুই শতাংশ জমির মালিকানার কাগজপত্রও তুলে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। 

এদিন ৬৬ হাজার ১৮৯টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে দুই শতাংশ খাস জমির মালিকানা দিয়ে দুই কক্ষবিশিষ্ট একক গৃহ মুজিববর্ষের উপহার হিসেবে পেয়েছেন। একইসঙ্গে ২১টি জেলার ৩৬টি উপজেলায় ৪৪ প্রকল্পে আরও তিন হাজার ৭১৫টি পরিবারকে ব্যারাকে পুনর্বাসন করা হয়। অর্থাৎ আনুষ্ঠানিকভাবে মোট ৬৯ হাজার ৯০৪ পরিবারকে ঘর ও জমি দেওয়া হয়েছে। একসঙ্গে এত বিপুলসংখ্যক মানুষকে বিনামূল্যে ঘর করে দেওয়ার মধ্য দিয়ে বিশ্বে অনন্য নজির সৃষ্টি করলো বাংলাদেশ।

গৃহহীনদের জন্য নির্মিত চারটি উপজেলার আশ্রয়ন নিবাসের উপকারভোগী মানুষ সরাসরি ভিডিও কনফারেন্সে অনুষ্ঠানে যোগ দেন। এছাড়া দেশের ৬৪টি জেলার সব উপজেলার মানুষও টেরেস্টিয়ালে এই অনুষ্ঠানে যুক্ত ছিলেন। 

অনুষ্ঠানের সূচনা বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আজকে আমার আনন্দের দিন। যাদের কিছুই নেই তাদের ঘর করে দিয়ে মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দিতে পেরেছি। যখন এই মানুষগুলো এই ঘরে থাকবে তখন আমার বাবা-মার আত্মা শান্তি পাবে। লাখো শহীদের আত্মা শান্তি পাবে। কারণ এসব দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানোই তো ছিল আমার বাবার লক্ষ্য।

মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে সবার জন্য আবাসন নিশ্চিত করার দৃঢ় প্রত্যয় পুর্নব্যক্ত করে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, মুজিববর্ষে একটি মানুষও গৃহহারা থাকবে না। ঠিকানাহীন থাকবে না। আমরা সবার জন্য ঠিকানা করে দেব, সবাইকে ঘর করে দেব। বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষ যেন সুন্দরভাবে বসবাস করতে পারে সেটাই আমার লক্ষ্য। 

একসঙ্গে এত বিপুল সংখ্যক মানুষকে ঘর দেওয়ার বিরল নজির প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি জানি না পৃথিবীর কোনো দেশে কখনো অথবা আমাদের দেশে কোনো সরকার এত দ্রুত এতগুলো ঘর করেছে। এই ঘরগুলো তৈরি করা সহজ কথা নয়।’ এজন্য সরকারের বিভিন্ন প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, এতটা সমন্বিত কার্যক্রম এর আগে দেশে এভাবে হয়ওনি। 

করোনাভাইরাসের মধ্যেও দেশকে এগিয়ে নিতে তার সরকার গৃহীত পদক্ষেপগুলো তুলে ধরে তিনি বলেন, করোনা যেমন একদিকে অভিশাপ, তেমনি আমাদের জন্য আশির্বাদও বয়ে এনেছে। কারণ এই সময়ে আমরা এই কাজগুলো ভালোভাবেই করতে পেরেছি। দেশের মানুষের দোয়া চাই, যেন এই দেশটাকে জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তুলতে পারি। প্রতিটি মানুষ যেন ভালোভাবে বেঁচে থাকতে পারে। তারা যেন সুন্দও ও উন্নত জীবন পায়, সকলের ভাগ্যের পরিবর্তন হয়।    

সারাদেশে যারা ঘর পেয়েছেন তাদের ঘরের সামনে একটি করে গাছ, বিশেষ করে ফলজ গাছ লাগানোর আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। নদীভাঙনে যাতে আর কেউ যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সেজন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব তোফাজ্জল হোসেন মিয়া। পরে মোনাজাত পরিচালনা করেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম মাওলানা মুফতি মিজানুর রহমান।