সিলেটের জৈন্তাপুরে গৃহহীনদের জন্য সরকারের দেওয়া ঘর ফেরত দিয়েছেন এক ব্যক্তি। তিনি বলেছেন, তার ঘরবাড়ি থাকার তথ্য জানানোর পরও উপজেলা প্রশাসন তাকে ঘরটি বরাদ্দ দিয়েছিল। এভাবে আরও অনেককে ঘর দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন।

জৈন্তাপুরের চিকনাগুল ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের পশ্চিম ঠাকুরের মাঠি গ্রামের বশির উদ্দিন বলেন, আমি গৃহহীন ও ভূমিহীন না। রোববার স্থানীয় এমপি প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদের কাছে ঘরের কাগজপত্র ফেরত দিয়েছি।

বশির জানান, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য নজরুল ইসলাম জরুরি কাজের কথা বলে ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি সংগ্রহ করেন। পরে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে তাকে ভূমিহীন দেখিয়ে ঠাকুরের মাঠি মৌজায় ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়। ২২ জানুয়ারি উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঘরের কাগজপত্র পৌঁছে দেওয়া হয়।

বশির বলেন, কাগজপত্র পেয়ে আমি আশ্চর্য হই ও তা ফেরত দেওয়ার প্রস্তুতি নিই। আমার ঘরবাড়ি থাকার পরও উপজেলা প্রশাসন কীভাবে ঘর বরাদ্দ দেয়?

এ বিষয়ে জৈন্তাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল আহমদ বলেন, অনিয়মের বিষয়টি জানার পর মন্ত্রীর নির্দেশে আমি সরেজমিনে তদন্ত করে ২৩ জনের ঘর বাতিল করার কথা বললেও রহস্যজনকভাবে উপজেলা প্রশাসন ও ঘর বরাদ্দ কমিটি ঘর বরাদ্দ করেছে। সবার উপস্থিতিতে একটি ঘর মন্ত্রীর কাছে ফেরত দিয়ে বশির অনিয়মের সত্যতাই প্রমাণ করলেন।

বিষয় : সিলেট আশ্রয়ণ প্রকল্প

মন্তব্য করুন