'সত্য বচনে' এবার চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ আনলেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক, সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই ও নোয়াখালী বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা। তিনি বলেন, চট্টগ্রামের নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি। রক্তপাত হয়েছে। এটাকে মেনে নেওয়া যায় না। আজ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সংগঠন আওয়ামী লীগ পথহারা।

বুধবার রাতে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার সরকারি মুজিব কলেজ মাঠে নাগরিক সমাজের উদ্যোগে আয়োজিত সংবর্ধনায় এসব কথা বলেন তিনি। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ওবায়দুল কাদের বক্তব্য দেওয়ার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত বক্তব্য দেননি তিনি। এ ব্যাপারে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন বলেন, জাতীয় সংসদের অধিবেশন চলার কারণে তিনি বক্তব্য দিতে পারেননি।

ওবায়দুল কাদেরকে উদ্দেশ করে কাদের মির্জা বলেন, 'ঢাকায় বসে রাজনীতি করবেন? আমার নেতাকর্মীরা আপনাদের পেছনে স্লোগান দেয়- ওবায়দুল কাদের সাহেব, পদ টেকাতে অপশক্তির কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন। তিনি (ওবায়দুল কাদের) আমাকে টেলিফোনে বলেন- তুমি আমার পদ খাবে নাকি? একরাম চৌধুরীর বহিস্কার পর্যন্ত আমাদের এ আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।' 

এ দাবিতে তিনি আগামী ৩১ জানুয়ারি কোম্পানীগঞ্জে সর্বত্র আধাবেলা হরতাল পালনের কথাও উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, 'অপরাজনীতির কাছে মাথানতকারীরা আমার ভোটারদের অভিনন্দন পর্যন্ত জানায়নি। যে দলের জন্য সারাজীবন ত্যাগ স্বীকার করেছি, তারাও খবর নেয়নি। ভিডিও কনফারেন্সের প্রোগ্রাম দিয়ে যারা কথা রাখেনি, তারা অপশক্তির কাছে মাথানত করেছে।'

কাদের মির্জা আরও বলেন, 'বহিষ্কারের হুমকি দিচ্ছেন? বহিষ্কার করবেন, বহিষ্কার করলেও নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর জয়গান ও শেখ হাসিনার উন্নয়নের কথা বলব। গ্রেপ্তার করবেন? ১৯৮২ সাল থেকে জেল খেটে আসছি। এখন যারা ষড়যন্ত্র করেন, তখন তো তারা মায়ের পেটে ছিলেন। ওবায়দুল কাদের সাহেব, আপনি কীভাবে সারেন্ডার করলেন, কীভাবে আত্মসমর্পণ করলেন? আমার আব্বা কি রাজাকার ছিলেন? ওবায়দুল কাদের সাহেব আপনার আব্বা মোশারফ হোসেন রাজাকার নন, তিনি বসুরহাট হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক ছিলেন। আর যারা আমার পরিবারকে নিয়ে রাজাকার বলছে, তাদের কাছে আত্মসমর্পণ করছেন।'

নাগরিক সমাজের আহ্বায়ক ঢাকায় নোয়াখালী সমিতির সভাপতি ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খান, সাধারণ সম্পাদক নুরনবী চৌধুরী, আওয়ামী লীগ নেতা ও শিল্পপতি গোলাম শরিফ চৌধুরী পিপুল, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য ইস্কান্দার মির্জা শামীম, যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা নুরুল করিম জুয়েল, বসুরহাট পৌরসভা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজম পাশা চৌধুরী রুমেল, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী আরজুমান পারভীন রুনু প্রমুখ। 

অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী মমতাজ বেগম এমপি ও কর্ণিয়া।