গাজীপুরের কাশিমপুরে এক নারী অভিনয় শিল্পীকে ইউটিউব চ্যানেলের নাটকে অভিনয়ের কথা বলে ডেকে নিয়ে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার মামলা করলে রাতেই অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলো- গাজীপুর সিটির সারদাগঞ্জ এলাকার আজিজুল খানের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম ওরফে শুভ (২৩), টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার খৈলসিন্দু গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে সুমন মিয়া (২৭), ফরিদপুরের ভাঙ্গা থানার ভদ্রাসন গ্রামের মোতালেব তালুকদারের ছেলে রাসেল তালুকদার (৩৫), নওগাঁর আত্রাই থানার সমসপাড়া গ্রামের কোরান সরদার (৩২) ও একই গ্রামের জহির উদ্দিন (৩২) এবং রংপুরের হারাগাছ থানার গোফরটারনী এলাকার বকুল মিয়ার ছেলে সাহাবুল ওরফে সাইজুল (৩৭)।

এলাকাবাসী এবং ওই শিল্পীর পরিবারের সদস্যরা জানান, গত রোববার জাহাঙ্গীর আলম ও তার সহযোগীরা ইউটিউব চ্যানেলের জন্য নাটকে অভিনয়ের কথা বলে তাকে কাশিমপুরের সারদাগঞ্জ এলাকায় ডেকে নেয়। পরে বাসায় একটি ঘরে আটকে রেখে তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে পাঁচ যুবক।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই অভিনয় শিল্পী কাশিমপুর থানায় মামলা করেন। পরে রাতেই পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। বুধবার দুপুরে গাজীপুরে আদালতে তোলা হলে আদালত তাদের জেল হাজতে পাঠান।

ওই নারী শিল্পী জানান, তিনি কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন ইউটিউব চ্যানেল, টিকটক ও আট মিনিটের নাটকে কাজ করে আসছেন। জাহাঙ্গীর আলম ইউটিউবের জন্য নাটক বানানোর কথা বলে গত রোববার রাতে শুটিংয়ের জন্য তাকে ডাকেন। কিন্তু ওই এলাকায় যাওয়ামাত্র একটি কক্ষে আটকে রেখে পাঁচজন তাকে ধর্ষণ করে।

কাশিমপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুবে খোদা জানান, গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ওই নারীকে গাজীপুর শহীদ তাজ উদ্দিন আহম্মদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন