বয়স মাত্র ছয় বছর। কিন্তু কিডনি নষ্ট হয়ে এখনই ঝরে পড়তে চলেছে ছোট্ট 'কুঁড়িটি'। চিকিৎসক জানিয়েছেন, শিশু তৈয়বা ইমতিয়ার একটি কিডনি অকার্যকর হয়ে গেছে, অন্যটিও ফুলে উঠেছে। শিশুটিকে বাঁচাতে হলে কিডনি প্রতিস্থাপন করতে হবে। এ জন্য অন্তত ২০ লাখ টাকা প্রয়োজন।

তৈয়বা পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার সাঁড়াগোপালপুর ইরকোন গেট এলাকার গার্মেন্ট শ্রমিক ইমারত তালুকদার ও সুমাইয়া শ্রাবণ দম্পতির মেয়ে। ইমারতের জমিজিরেত নেই।রেলের জমিতে ঘর তুলে বসবাস করছেন। মেয়েটি বর্তমানে ঢাকার শিশু হাসপাতালের কিডনি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. শিরিনা আফরোজের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন।

পারিবার জানিয়েছে, প্রায় নয় মাস ধরে চলছে চিকিৎসা। প্রতি মাসে ওষুধ বাবদ প্রায় নয় হাজার টাকা এবং দুই মাস পরপর ডায়ালাইসিস করতে এককালীন খরচ হয় ৬৫ থেকে ৭০ হাজার টাকা। এ পর্যন্ত প্রায় সাত লাখ টাকা খরচ হয়েছে। মেয়ের কিডনি প্রতিস্থাপনের টাকা জোগাড় করা এই পরিবারের পক্ষে সম্ভব নয়। কারণ মেয়ের চিকিৎসা করাতে গিয়ে এরই মধ্যে নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন ইমারত তালুকদার। এতদিন আত্মীয়স্বজনের কাছে ধারদেনা এবং নিজের ভিটামাটি বেচে মেয়ের জন্য খরচ করেছেন।

মেয়েকে বাঁচাতে সমাজের বিত্তবানদের কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন ইমারত তালুকদার। তৈয়বার জন্য সাহায্য পাঠানো যাবে- ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক, হিসাব নম্বর-১৬১১০৩০২৫০৯০৩। এ ছাড়া ০১৪০৫৯৭১৭০০ নম্বরে বিকাশ করেও টাকা পাঠাতে পারবেন।