বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) দুই শিক্ষার্থীকে মারধর ও লাঞ্ছিত করার জের ধরে বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়ক প্রায় দুই ঘণ্টা অবরোধ করে রাখেন ববি শিক্ষার্থীরা। এ সময় সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করেন তারা। এতে মহাসড়কের দুই পাশে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। দুর্ভোগে পড়েন সাধারণ যাত্রীরা। 

মঙ্গলবার দুপুরে রূপাতলী বাস টার্মিনালে বিআরটিসির বাস শ্রমিকরা ববির দুই শিক্ষার্থীকে মারধর ও লাঞ্ছিত করে। এরপর রূপাতলী বাস টার্মিনাল এলাকায় মহাসড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ শুরু করেন শিক্ষার্থীরা।

এ ঘটনায় এক বাস শ্রমিককে গ্রেপ্তার করা হয়। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর এবং পুলিশের পক্ষ থেকে অভিযুক্ত অন্য শ্রমিকদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে বিকাল ৪টায় শিক্ষার্থীরা অবরোধ তুলে নেন। এরপর ওই মহাসড়কে আবার যানবাহন চলাচল শুরু হয়।

বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীরা জানান, দুপুর সাড়ে ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী তৌফিকুল সজল ও ফারজানা আক্তার বাড়ি যাওয়ার জন্য বিআরটিসি বাস কাউন্টারে যান। সেখানে রফিক নামের এক বাসশ্রমিকের সঙ্গে তাদের কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে সজলকে মারধর করে রফিক। এছাড়া ফারজানাকেও লাঞ্ছিত করা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ খবর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে দেড়টার দিকে তারা ঘটনাস্থলে যান। দুপুর দুইটা থেকে সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ শুরু করেন তারা।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর সুপ্রভাত হালদার জানান, খবর পেয়ে তিনিসহ অন্য শিক্ষকরা ঘটনাস্থলে যান এবং পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে বাস শ্রমিকদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন। এরপর বিকাল ৪টায় শিক্ষার্থীরা অবরোধ তুলে নেন।

কোতোয়ালি মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান জানান, অভিযুক্ত রফিককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অভিযুক্ত অন্য বাস শ্রমিকদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাসে শিক্ষার্থীরা অবরোধ প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।