নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের আলোচিত ঘটনায় ধর্ষণ মামলার বিচার শুরু হয়েছে।

ওই গৃহবধূকে ধর্ষণে অভিযুক্ত দুই আসামি দেলোয়ার বাহিনীর প্রধান দেলোয়ার হোসেন ও তার সহযোগী আবুল কালামের বিরুদ্ধে বুধবার আদালতে অভিযোগ (চার্জ) গঠন করা হয়।

দুপুরে নোয়াখালীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১-এর বিচারক জয়নাল আবেদীনের আদালতে এ বিষয়ে শুনানি হয়। এর আগে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পড়ে শোনান রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি মামুনুর রশীদ। এ সময় আসামিরা নিজেদের নির্দোষ দাবি করেন। তবে আদালতে তাদের পক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না।

বাদীপক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মোল্লা হাবিবুল রসুল মামুন। তাকে সহযোগিতা করেন বাংলাদেশ মহিলা আইনজীবী সমিতির পক্ষে আয়েশা বেগম শিরিন, সাহিদা আক্তার, ছালেহা বেগম ও কল্পনা রানী দাস।

গত বছরের ২ সেপ্টেম্বর রাতে বেগমগঞ্জ উপজেলার একলাশপুর ইউনিয়েনে নিজ বাড়িতে ঢুকে ওই গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন চালায় স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ী ও দেলোয়ার বাহিনীর প্রধান দেলোয়ার এবং তার লোকজন।

গত ৪ অক্টোবর ওই নির্যাতনের ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে দেশব্যাপী তোলপাড় সৃষ্টি হয়। প্রতিবাদে রাস্তায় নামে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। ওই ঘটনায় বেগমগঞ্জ মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন এবং পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা করেন ওই নারী। এর দু'দিন পর ৬ অক্টোবর দেলোয়ার ও কালামের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনে আরেকটি মামলা করেন তিনি।

মামলার অভিযোগে ওই নারী বলেন, গত বছরের ৭ এপ্রিল বাড়ির পাশের বাইয়া ডগি নামক বিলে নিয়ে নৌকার মধ্যে তাকে ধর্ষণ করে দেলোয়ার ও কালাম।

এ মামলার তদন্তভার দেওয়া হয় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই)। পিবিআই নোয়াখালী কার্যালয়ের পরিদর্শক সিরাজুল মোস্তফা গত বছরের ১৪ ডিসেম্বর দেলোয়ার ও আবুল কালামের বিরুদ্ধে নোয়াখালী চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট উৎপল চৌধুরীর আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। বুধবার এ মামলার বিচারকাজ শুরু হলো।


বিষয় : বেগমগঞ্জ ধর্ষণ

মন্তব্য করুন