নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ঘোড়াশালে মিতু নামে এক তরুণীকে বাঁচাতে গিয়ে দ্রুতগামী ট্রেনের ধাক্কায় সাইফুল ইসলাম নামে এক তরুণ নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার বিকেলে ঘোড়াশাল রেলস্টেশনে এই ঘটনায় ওই তরুণী আহত হন।

নিহত সাইফুল ইসলাম শিবপুর উপজেলার ধনুয়া গ্রামের জামাল উদ্দিনের ছেলে। তিনি গাজীপুরের কালীগঞ্জে প্রাণ আরএফএল ফ্যাক্টরিতে শ্রমিকের কাজ করতেন। মিতুও একই কারখানার শ্রমিক। তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ঘোড়াশাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জহিরুল ইসলাম প্রত্যক্ষদর্শী ও নিহতের স্বজনদের বরাতে জানান, দুপুরে সাইফুল ও মিতু ঘোড়াশাল রেলস্টেশনে ঘুরতে আসেন। সেখানে তাদের মধ্যে মনোমালিন্য হওয়ায় এক পর্যায়ে মিতু আত্মহত্যা করতে রেললাইনে গিয়ে দাঁড়ান। এ সময় পেছন থেকে ঢাকাগামী এগারো সিন্ধু ট্রেন আসতে দেখে সাইফুল দৌঁড়ে তাকে বাঁচাতে গিয়ে দ্রুতগামী ওই ট্রেনের ধাক্কায় ছিটকে পড়েন। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এ সময় মিতুও আহত হন। তাকে পুলিশ উদ্ধার করে প্রথমে ঘোড়াশালে রওশন হাসপাতালে ও পরে ঢাকায় পঙ্গু হাসপাতালে পাঠায়।

নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ফাড়ির উপ পরিদর্শক ইমায়েদুল জাহিদি সাইফুরের লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠান।