চট্টগ্রামে এক পোশাককর্মীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার নগরের ডবলমুরিং থানার চৌমুহনী এলাকার সুলতান কলোনির ভাড়া বাসায় খাদিজা বেগম (২২) ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করেন বলে দাবি স্বামী সাদ্দাম হোসেনের।

তবে পুলিশ বলছে, এটি আত্মহত্যা, নাকি পরিকল্পিত হত্যা, তা তদন্তের পরই জানা যাবে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাদ্দামকে হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ।

খাদিজা বেগম কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার জিয়াকান্দি গ্রামের আতাউর রহমানের মেয়ে। পাঁচ মাস আগে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার ফকিরহাট এলাকার সাদ্দাম হোসেনের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। সাদ্দাম আগ্রাবাদ এলাকায় একটি কম্পিউটার দোকানে চাকরি করেন। গত ১৬ ফেব্রুয়ারি থেকে খাদিজা একটি পোশাক কারখানায় কাজ নেন।

ডবলমুরিং থানার এসআই নজরুল ইসলাম বলেন, মরদেহ সুরতহাল করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। খাদিজার স্বামীর দাবি, সকাল ৮টার দিকে তিনি বাসা থেকে বের হয়ে যান। ৯টার দিকে বাসায় ফিরে দেখেন দরজা ভেতর থেকে বন্ধ। ডাকাডাকির পরও দরজা না খোলায় প্রতিবেশীদের সহায়তায় দরজা ভেঙে ভেতরে ঢোকেন তারা। এ সময় ঘরের সিলিংয়ের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে তার স্ত্রীর নিথর দেহ ঝুলতে দেখতে পান। উপস্থিত লোকজনের সহায়তায় সেখান থেকে নামিয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে নিয়ে আসেন।

এ বিষয়ে তার স্বামী সাদ্দাস হোসেনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।



মন্তব্য করুন