শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলার ভেলুয়া ইউনিয়নে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী এক তরুণী (২৪) ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। কয়েক মাস ধরে ওই অসহায় তরুণীকে তিন বখাটে মিলে একাধিক বার ধর্ষণ করেছে। 

অবশেষে জাতীয় জরুরি সেবার ৯৯৯ নাম্বারে ফোন পেয়ে বৃহস্পতিবার একজনকে আটক করেছে পুলিশ। আটক বিল্লাল হোসেন (৩২) ওই ইউনিয়নের মৃত আক্তার আলীর ছেলে।

পুলিশ জানায়, ওই তরুণীর বাবা নেই। মা ঢাকায় গৃহকর্মীর কাজ করেন। বাড়িতে প্রতিবন্ধী এক ভাই ও তার প্রতিবন্ধী স্ত্রী থাকেন। প্রতিবেশী জহুর আলীর ছেলে সাহেদ, মিস্টার আলীর ছেলে মনসুর ও বিল্লাল প্রায় প্রতি রাতে এসে বিভিন্ন ছলে তরুণীকে ধর্ষণ করত। বুধবার রাতে মেয়েটি ফের ধর্ষণের শিকার হয়। পরে বৃহস্পতিবার সকালে তলপেটে ব্যাথা অনুভব করলে এক প্রতবেশীকে জানায়। পরে তিনি ব্যাথার কারণ জানতে চাইলে ধর্ষণের ঘটনাটি জানতে পারেন। পরে ৯৯৯ ফোন করলে পুলিশ এসে বিল্লালকে আটক করে এবং ওই তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য শেরপুর জেলা হাসপাতালে পাঠায়।

শ্রীবরদী থানার ওসি মো. মোখলেছুর রহমান বলেন, আটক বিল্লাল আদালতে ১৬৪ ধারায় ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছেন। এ ঘটনায় মেয়েটির মা বাদী হয়ে তিনজনের নামে একটি মামলা করেছেন। অন্যদের ধরতে পুলিশ তৎপরতা চালাচ্ছে।

মন্তব্য করুন