খুলনায় এক লাখ ৫০ হাজার ১৫১ শিশুর কণ্ঠে উচ্চারিত হলো জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে খুলনা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এবং চাইল্ড ইন্টেগ্রিটি ও শিশু বঙ্গবন্ধু ফোরামের ব্যবস্থাপনায় আয়োজন করা হয় ব্যতিক্রমী এ অনুষ্ঠানের।

রোববার দুপুর ২টায় নগরীর বয়রা এলাকায় সরকারি মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে আয়োজন করা হয় মূল অনুষ্ঠানের। সেখানে উপস্থিত ছিল নগরীর খ্যাতনামা ১০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১৫১ 'খুদে বঙ্গবন্ধু'। এ ছাড়া এক হাজার ৫০০ প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসা থেকে জুম অ্যাপের মাধ্যমে সংযুক্ত হয় ১০০ করে 'শিশু বঙ্গবন্ধু'। তাদের প্রত্যেকে বঙ্গবন্ধুর মতো সাদা পাঞ্জাবি-পাজামার সঙ্গে মুজিব কোট পরিহিত ছিল।

অনুষ্ঠানে জুমের মাধ্যমে সংযুক্ত হন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন। এ ছাড়া জেলা প্রশাসক হেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত ছিলেন খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক, বিভাগীয় কমিশনার ইসমাইল হোসেন, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুজিত কুমার অধিকারী, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম ডি এ বাবুল রানা প্রমুখ। অনুষ্ঠানে সমবেত কণ্ঠে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ উচ্চারণের পর বিভাগীয় কমিশনার শিশুদের শপথ বাক্য পাঠ করান।

২০১৯ সালের ৭ মার্চ সহস্র কণ্ঠে, ২০২০ সালের ১০ জানুয়ারি কাউন্টডাউনের প্রথম প্রহরে ১৯২০ 'শিশু বঙ্গবন্ধু' এবং ২০২০ সালের ৭ মার্চ ১৯ হাজার ২০০ 'শিশু বঙ্গবন্ধু'র কণ্ঠে খুলনা জেলা স্টেডিয়ামে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের কালজয়ী ভাষণের আয়োজন করা হয়েছিল।