সিলেটে পারিবারিক কলহের জেরে ইনজেকশন পুশ করে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় গৃহবধূর স্বামী আয়নুল হককে আটক করা হয়েছে। সে নগরীর গোয়াবাড়ি জাহাঙ্গীরনগর এলাকার মাসুক মিয়ার ছেলে।

পুলিশ রোববার গৃহবধূ সুফিয়া বেগমের লাশ উদ্ধার করে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। সুফিয়া খাদিমনগর চা বাগানের মিত্রিঙ্গা লাইন বরইতলার মৃত হারুন মিয়ার মেয়ে।

মহানগর পুলিশের গণমাধ্যম শাখার বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রায় সাত মাস আগে আয়নুল ও সুফিয়ার পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তুচ্ছ ঘটনায় আয়নুল তার স্ত্রীকে মারধর করত বলে অভিযোগ করেছে ভুক্তভোগী পরিবার। গত শনিবার স্ত্রীকে নিয়ে আয়নুল শ্বশুরবাড়ি বেড়াতে আসে। রাত ১২টার দিকে সে শারীরিক দুর্বলতার অজুহাতে স্ত্রীকে ইনজেকশন পুশ করে। রোববার ভোর ৪টার দিকে সুফিয়ার অবস্থার অবনতি হয় এবং এক পর্যায়ে তিনি নিস্তেজ হয়ে পড়েন।

সকাল পৌনে ৮টার দিকে স্বজনরা গৃহবধূকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এর পর পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে একই হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়।

মহানগর পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত উপকমিশনার বিএম আশরাফ উল্ল্যাহ তাহের বলেন, অভিযুক্ত স্বামী নগরীর মধুশহীদ এলাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালের ওয়ার্ডবয়। তাকে বিমানবন্দর থানায় রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।