যশোরে বোনকে হত্যার দায়ে আব্দুর রহিম নামে এক ব্যক্তিকে ফাঁসি ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছেন আদালত।

সোমবার দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক এম এ হামিদ এই রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণা শেষে বিচারক আসামি আব্দুর রহিমকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

সাজাপ্রাপ্ত আব্দুর রহিম যশোরর মণিরামপুর উপজেলার বিজয়রামপুর গ্রামের মৃত এনায়েত আলী মোড়লের ছেলে।

সরকার পক্ষের আইনজীবী বিমল কুমার রায় জানান, পৈতৃক জমি নিয়ে আব্দুর রহিমের সঙ্গে তার বোন নূরজাহান বেগমের (৬২) দীর্ঘদিন ধরে মামলা মোকাদ্দমা চলছিল। জমির বিষয়ে কথা বলতে ২০১৯ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি সকালে নূরজাহান বেগম তার স্বামীকে নিয়ে আব্দুর রহিমের বাড়িতে যান। কথাবার্তার একপর্যায়ে আব্দুর রহিম ধারালো অস্ত্র দিয়ে নূরজাহান বেগমের মাথায় কোপ দেন। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। এসময় চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে আব্দুর রহিমকে আটক করে। এছাড়া নূরজাহান বেগমকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে তিনি মারা যান। এ ঘটনায় নূরজাহান বেগমের ছেলে জিল্লুর রহমান বাদী হয়ে আব্দুর রহিমের বিরুদ্ধে মণিরামপুর থানায় মামলা করেন। 

এপিপি বিমল কুমার আরো জানান, দীর্ঘ শুনানি শেষে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বিচারক আব্দুর রহিমকে ফাঁসি ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছেন। এ রায়ে বাদীপক্ষ সন্তুষ্ট বলে জানিয়েছেন।