সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার না হলে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন সার্থক হবে না বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রামের সর্বস্তরের মানুষ। সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় জড়িতদের চিহ্নিত করে অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও বিচার এবং রাষ্ট্রকে জাতীয় চার মূলনীতির ভিত্তিতে পরিচালিত করার দাবি উঠেছে সমাবেশ থেকে।

রোববার নগরের চেরাগী পাহাড় চত্বরে 'রুখো সাম্প্রদায়িকতা, রুখো মৌলবাদ, জাগাও বিবেক-রামু থেকে গোবিন্দগঞ্জ, নাসিরনগর থেকে শাল্লা- এই বর্বরতার শেষ কোথায়?' স্লোগানে সাম্প্রদায়িকতাবিরোধী তরুণ উদ্যোগের আয়োজনে এই নাগরিক মানববন্ধন ও সমাবেশের আয়োজন করা হয়। সমাবেশে চট্টগ্রামের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশা, রাজনৈতিক দল, ছাত্র সংগঠন ও সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং পেশাজীবী নেতৃবৃন্দ অংশ নেন।

সমাবেশে কবি ও সাংবাদিক আবুল মোমেন বলেন, অত্যন্ত দুর্ভাগ্য বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে আমাদের দাঁড়াতে হচ্ছে মৌলবাদের বিরুদ্ধে। মুক্তিযুদ্ধে আমরা অংশ নিয়েছিলাম জাতি-ধর্ম-বর্ণ এবং নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সবাই। সেই লড়াইয়ের ফসল বাংলাদেশ। সভাপতির বক্তব্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী নুরুল আবছার বলেন, বঙ্গবন্ধুর কথা আজ বারবার চলে আসে। যে বাঘা যতীনের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখেছিলেন, সেই বাঘা যতীনের ভাস্কর্য কে ভাঙল? দিরাই শাল্লা নাসিরনগরে কারা হামলা করল? তারা কারা?

কমিউনিস্ট পার্টির চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক অশোক সাহা বলেন, আজ যাদের হাতে রাষ্ট্র, তাদের আশ্রয়ে এসব ঘটনা ঘটছে। রাজনীতির সঙ্গে সাম্প্রদায়িকতা মিশলে এমন ঘটনা ঘটে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. মাহফুজুর রহমান বলেন, বঙ্গবন্ধু দুটি ঘোষণা দিয়েছিলেন। এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। আমরা এখন মুক্তির সংগ্রামে আছি। সারাদেশে একটি আন্দোলনই করা উচিত- সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় যারা জড়িত, তাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করা।

কবি ও সাংবাদিক ওমর কায়সার বলেন, যখন সারাদেশে ঘটা করে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী পালন করছে, তখন সমাজটা একাত্তরের পরাজিত শক্তির দখলে।

সাম্প্রদায়িকতাবিরোধী তরুণ উদ্যোগের যুগ্ম আহ্বায়ক ইউসুফ সোহেলের সঞ্চালনায় সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন নারীনেত্রী নুরজাহান খান, প্রকৌশলী দেলোয়ার মজুমদার, চবি শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি ড. বেণু কুমার দে, উদীচী চট্টগ্রামের সংগঠক অধ্যাপক শীলা দাশগুপ্তা, খেলাঘর চট্টগ্রাম মহানগরী কমিটির সহসভাপতি কবি আশীষ সেন প্রমুখ।