লক্ষ্মীপুরে আদালতের ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়ে এক যুবক আত্মহত্যা করেছেন। বুধবার দুপুরে লক্ষ্মীপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালত ভবনের ৫ তলার ছাদ থেকে লাফ দেন তিনি। আদালতে উপস্থিত লোকজন দৌড়ে এসে দেখেন ততক্ষণে মারা গেছেন ওই যুবক। পরে তার মরদেহ উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়।

ওই যুবকের নাম রাকিব হোসেন রোমান। তিনি লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের মজুপুর এলাকার বাসিন্দা। তিনি শহরের মটকা মসজিদ এলাকায় দুই ভাইয়ের সঙ্গে যৌথ (ভাঙ্গারি) ব্যবসা করতেন।

সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক আনোয়ার হোসেন জানান, রাকিবকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছিল। ঠিক কী কারণে তার মৃত্যু হয়েছে, তা ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে।

নিহতের বড় ভাই সোহেল জানান, সকালে রাকিবকে পারিবারিক বিষয় নিয়ে বকাঝকা করা হয়। পরে তিনি দোকান থেকে অভিমান করে বের হয়ে আসেন। এরপর তার মৃত্যু সংবাদ শুনতে পান তিনি।

এদিকে, আত্মহত্যার আধাঘণ্টা আগে নিজের ফেসবুক আইডিতে ১ মিনিট ৪৬ সেকেন্ডের একটি ভিডিওবার্তা পোস্ট করেন রাকিব। এতে তিনি বলেন, তার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নন। তিনি অনেক ভুল করেছেন, তবে চুরি করেননি। তবে স্থানীয়রা জানান, তারা তিন ভাই যৌথভাবে ব্যবসা করতেন। তাদের একজন রাকিবের বিরুদ্ধে চুরির অভিযোগ এনে মামলা করা হবে বলে হুমকি দিয়েছেন। এ কারণে তিনি আদালতের ছাদে উঠে নিজেকে নির্দোষ দাবি করে ভিডিও প্রকাশ করেন।

সদর থানার ওসি জসীম উদ্দিন জানান, যুবকের আত্মহত্যার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। বিষয়টি তদন্ত করে ঘটনার রহস্য উদঘাটন ও পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।