ঢাকা শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪

ছাত্রলীগের দুই পক্ষের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া পাঁচজন আহত

ছাত্রলীগের দুই পক্ষের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া পাঁচজন আহত

নবীগঞ্জ শহরে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া চলাকালের দৃশ্য সমকাল

 নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি 

প্রকাশ: ৩০ নভেম্বর ২০২৩ | ২২:১৮

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া উপলক্ষে আয়োজিত সভায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় উভয়পক্ষে অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকালে নবীগঞ্জ শহরের নতুন বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ছাত্রলীগের দুই পক্ষের এই ঘটনায় শহরজুড়ে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। 

সংঘর্ষে আহতরা হলেন– আলী আজগর (২২),  ইমন আহমদ (২০), মান্না (২৩), সাজু (২০) ও রিমন (২১)। তাদের মধ্যে গুরুতর আহত হওয়ায় আলী আজগরকে সিলেট ওসমানী মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে। অপর আহতদের নবীগঞ্জ উপজেলার বেসরকারি ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

জানা যায়, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী ডা. মুশফিক হোসেন চৌধুরীর মনোনয়ন দাখিল উপলক্ষে নবীগঞ্জ শহরের নতুন বাজার এলাকায় একটি মার্কেটে মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়। এ উপলক্ষে সকাল থেকে স্থানীয় আওয়ামী লীগ-যুবলীগ-ছাত্রলীগসহ আওয়ামী লীগের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা জড়ো হন।  এ সময় উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক নাজিমউদ্দৌলা চৌধুরীর নেতৃত্বে ছাত্রলীগের একদল নেতাকর্মী সভাস্থলে এলে অপর গ্রুপের ছাত্রলীগ নেতা জাহিদুল ইসলাম রুবেলের নেতৃত্বে তাদের বাধা দেওয়া হয়। এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে দুইপক্ষর মধ্যে কয়েক দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটলে শহরে আতঙ্ক ছড়ায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে ছাত্রলীগের উভয়পক্ষের কর্মীরা অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে নিজ নিজ নেতার বাসভবনের সামনে মহড়া দিতে থাকলে পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। 

আওয়ামী লীগ নেতা ডা. নাজরা চৌধুরী বলেন, ছাত্রলীগের এই ঘটনায় তারা আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েন। দলীয় প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিলের দিনে ছাত্রলীগের এই কাণ্ডে আওয়ামী লীগ নেতারা লজ্জিত হয়েছেন। 
নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক নাজিমউদ্দৌলা চৌধুরী অভিযোগ করে বলেন, উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা আজগর ও ইমনের ওপর রুবেল-প্রমি-জয়ের নেতৃত্বে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা হামলা করে। এতে তারা গুরুতর আহত হয়। হামলাকারীরা কেউ ছাত্রলীগের সদস্য নয় বলে তিনি দাবি করেন।

উপজেলা ছাত্রলীগের অপর গ্রুপের নেতা জাহিদুল ইসলাম রুবেলের ভাষ্য, গত বুধবার রাতে শহরের গোল্ডেন প্লাজায় নাজিমউদ্দোলার লোকজন ছাত্রলীগ কর্মী মান্না ও সাজুর ওপর হামলা করে। এর সূত্র ধরে বৃহস্পতিবার নাজিমের লোকজন নতুন বাজার এলাকায় এলে ছাত্রলীগের কর্মীরা তাদের ধাওয়া দিয়ে বিতাড়িত করে। এ সময় রিমন নামে তাদের পক্ষের একজন আহত হয়েছে।  
নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাসুক আলী জানান, নিজেদের মধ্যে পূর্ববিরোধের জের ধরে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।
 

আরও পড়ুন

×