কুমিল্লার নাঙ্গলকোটের উত্তর শাকতলী গ্রামের মোহাম্মদ আবুল কাশেমের ছেলে এমরান হোসেন (৩২)। প্রায় ২৫ দিন আগে ছুটিতে বাহরাইন থেকে তিনি দেশে আসেন। এরপর শখ করে প্রায় দশদিন আগে মোটরসাইকেল চালানোও শেখেন তিনি। পরে স্ত্রীকে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে রওনা দেন শ্বশুরবাড়িতে। কিন্তু সেখানে আর যাওয়া হলো না এমরানের। তার আগেই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান তিনি।  

শুক্রবার বিকেলে উপজেলার জোড় খেজুরগাছ তলা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এতে এমরান হোসেনের স্ত্রী মিম আক্তার (২২) গুরুতর আহত হয়েছেন।

নিহত এমরানের চাচাতো ভাই মোহাম্মদ রাসেল মিয়া জানান, শুক্রবার বিকেরে প্রবাসী এমরান তার স্ত্রীকে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে উপজেলার নরপাটিতে তার শ্বশুর বাড়িতে যাচ্ছিলেন। তাদের বহনকারী যানটি পথে জোড় খেজুরগাছ এলাকায় পৌঁছলে এমরান নিয়ন্ত্রণ হারান এবং মোটরসাইকেলটি সড়কে পড়ে যায়। এ সময় পেছন থেকে আরেকটি দ্রুতগামী মোটরসাইকেল এসে তাদেরকে ধাক্কা দেয়। এতে ওই দম্পতি গুরুতর আহত হন। পরে তাদেরকে উদ্ধার করে প্রথমে লাকসাম জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া যায়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদেরকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।  

তিনি আরও জানান, সেখানে অবস্থার আরও অবনতি হলে চিকিৎসকের পরামর্শে রাতেই এমরানকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেলে নেওয়ার পথে রাত পৌনে ২টার দিকে তিনি মারা যান।

নিহতের ভাই বলেন, তিন ভাই ও চার বোনের মধ্যে পঞ্চম ছিলেন এমরান। দুই বছর আগে তিনি বিয়ে করেই বাহরাইন চলে যান। সর্বশেষ ২৫ দিন আগে দেশে আসেন। তার স্ত্রী এখন কুমিল্লা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন বলেও জানান তিনি।

নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বখতিয়ারদ্দীন চৌধুরী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, নিহতের স্বজনরা আহত অবস্থায় ওই দম্পতিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে ঢাকা মেডিকেলে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়।