নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার বজরা ইউনিয়নের একটি গ্রামে শনিবার এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় কিশোরীর বোন বাদী হয়ে রোববার সোনাইমুড়ি থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। 

পরে পুলিশ অভিযোগটি ধর্ষণ মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করে অভিযান চালিয়ে নুর হোসেন (২০) নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে। তিনি উপজেলার খাজুরিয়া গ্রামের আহসান উল্লাহ ওরফে জারু মিয়ার ছেলে।

কিশোরীর (১৪) স্বজনরা জানায়, নুর হোসেন দু'দিন আগে তাদের বাড়িতে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আসেন। ওই অনুষ্ঠানে মেয়েটির সঙ্গে তার পরিচয় হয়। ওই পরিচয়ের সূত্র ধরে শনিবার সন্ধ্যায় কিশোরীকে কথা আছে বলে বাড়ির বাগানের পাশে গোয়ালঘরে ডেকে নিয়ে যান। সেখানে কিশোরীর ওড়না দিয়ে মুখ বেঁধে তাকে ধর্ষণ করে পালিয়ে যান নুর হোসেন। পরে ঘটনাটি রাতেই সোনাইমুড়ি থানা পুলিশকে জানানো হয়।

পুলিশ জানায়, স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য মেয়েটিকে দুপুরে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে এবং ২২ ধারায় জবানবন্দি গ্রহণের জন্য আদালতে পাঠানো হয়েছে। নোয়াখালী চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের ৬নং আমলি আদালতের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাজী সোনিয়া আক্তার মেয়েটির জবানবন্দি গ্রহণ করেছেন।

সোনাইমুড়ি থানার ওসি মোঃ গিয়াস উদ্দিন জানান, গ্রেপ্তার যুবককে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।