রাজনৈতিক ও প্রশাসনিকভাবে কঠোর অবস্থানে থেকে হেফাজতে ইসলামকে মোকাবিলা করার কথা ভাবছে সরকার। এ যাবৎ সংঘটিত প্রতিটি সহিংস ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে খুব কম সময়ের মধ্যে চার্জশিট দেবে পুলিশ। এর পর পরই শুরু হবে গ্রেপ্তার। এরই মধ্যে সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলো নিয়ে গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদন সংগ্রহ করা হয়েছে। আওয়ামী লীগের কয়েকজন জ্যেষ্ঠ নেতা সমকালকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

নেতারা জানান, এখন দেশজুড়ে হেফাজতে ইসলামের সাংগঠনিক শক্তি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। পাশাপাশি তাদের সঙ্গে বিএনপি-জামায়াতের যোগসূত্র খতিয়ে দেখা হচ্ছে। যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তারা প্রথমে জনগণকে সচেতন করার কর্মকাণ্ডে উদ্যোগী ভূমিকা নেবেন। এরপর জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সার্বিক পরিস্থিতি মোকাবিলা করবেন।

এ ছাড়া প্রশাসনিকভাবে হেফাজতে ইসলামের ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ডকে ছাড় না দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে কয়েকজন মন্ত্রী সমকালকে জানিয়েছেন। ইতোমধ্যে এ ব্যাপারে উদ্যোগ নেওয়া শুরু হয়েছে। হেফাজতে ইসলামের আমির জুনায়েদ বাবুনগরীসহ ২৪ শীর্ষ নেতা এবং ঢাকা, চট্টগ্রাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও নারায়ণগঞ্জের ৩০টি মাদ্রাসার ব্যাংক হিসাব তলব করা হয়েছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান সমকালকে বলেন, চট্টগ্রাম ও ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ বিভিন্ন স্থানে ধর্মীয় উগ্রবাদী সংগঠনের সন্ত্রাস-সহিংসতা এবং উস্কানিমূলক অপতৎপরতার সঙ্গে সম্পৃক্ত কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না। এসব তাণ্ডবের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক পদক্ষেপ নেওয়া শুরু হয়েছে। প্রতিটি ঘটনায় চার্জশিট দেওয়া হবে। এরপর শুরু হবে আইনানুগ ব্যবস্থা।

আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় কয়েক নেতার ভাষ্য, হেফাজতে ইসলামের ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ডে রাষ্ট্রীয় সম্পদ নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি স্থানীয় পর্যায়ে দলের অনেক নেতাকর্মী ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তাদের বাড়ি-ঘর ও ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানে হামলা হয়েছে। অনেক জায়গায় আওয়ামী লীগের অফিস ভাঙচুর করা হয়েছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবির প্রতিও অসম্মান দেখানো হয়েছে। এই বিষয়গুলো নেতাকর্মীরা স্বাভাবিকভাবে নেননি। তারা কেন্দ্রের কাছে প্রয়োজনীয় সাংগঠনিক নির্দেশনা চাচ্ছেন। দলের কেন্দ্রীয় পর্যায় থেকেও এই বিষয়ে সাংগঠনিক প্রস্তুতি নেওয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। দলের চার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও আট বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক প্রস্তুত রয়েছেন। ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, ময়মনসিংহ, বরিশাল ও রংপুর বিভাগে দলের নেতাকর্মীদের তারাই গুছিয়ে আনতে উদ্যোগী ভূমিকা পালন করবেন।

আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী সমকালকে বলেন, শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে সরকার। সবাইকে আইনের আওতায় আনবে। আওয়ামী লীগ দায়িত্ববোধের অবস্থানে থেকে সন্ত্রাস ও সহিংসতার বিরুদ্ধে জনগণকে সচেতন করে তুলবে। মনে রাখতে হবে, ইসলাম শান্তির ধর্ম। ইসলামে জ্বালাও-পোড়াওয়ের কোনো স্থান নেই। এই চেতনাকে জাগ্রত করতে হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, হেফাজতে ইসলামের তাণ্ডবে ১৭ জন মারা গেছেন। হঠাৎ করে এই তাণ্ডব কেন? নিশ্চয়ই এর কোনো উদ্দেশ্য রয়েছে। তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। যারাই তাণ্ডব করে থাকুক, তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও হেফাজতে ইসলামের তাণ্ডবের তীব্র সমালোচনার পাশাপাশি এর বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানের ইঙ্গিত দিয়েছেন। হেফাজতে ইসলামের সন্ত্রাস-সহিংসতার পেছনে বিএনপি-জামায়াতের ইন্ধন ও সম্পৃক্ততা খুঁজে দেখার কথাও বলেছেন। বিএনপি-জামায়াত ও তাদের মিত্রদের বক্তৃতা-বিবৃতিই হেফাজতে ইসলামের তাণ্ডবের সঙ্গে তাদের সম্পৃক্ততা প্রমাণ করে- এমনটা মনে করছেন সরকারের নীতিনির্ধারকরা। বিশেষ করে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বিরোধিতায় হেফাজতে ইসলামের ডাকা হরতালে জামায়াতে ইসলামীর সরাসরি সমর্থন এবং বিএনপি নেতাদের এই হরতালকে যুক্তিসংগত আখ্যা দেওয়ার বিষয়টি ভালোভাবে নেয়নি সরকার।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত রোববার সংসদ অধিবেশনে হেফাজতে ইসলামের সাম্প্রতিক তাণ্ডবের চিত্র তুলে ধরার পাশাপাশি তাদের বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন। তিনি বলেছেন, অপকর্মের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। হেফাজতে ইসলামের তাণ্ডবের পেছনে বিএনপি-জামায়াতের মদদ রয়েছে বলেও মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেছেন, 'পুলিশ কেন ধৈর্য দেখিয়েছে- এই প্রশ্ন সংসদেও এসেছে। আমরা ধৈর্য দেখিয়েছি এগুলো বিরত করার জন্য। সংঘাতে সংঘাত বাড়ে। আমরা তা চাইনি। সুবর্ণজয়ন্তী ভালোভাবে উদযাপন করতে চেয়েছি।'

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গতকাল সাংবাদিকদের বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে যারা তাণ্ডব চালিয়েছিল, তদন্তের মাধ্যমে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ শুরু হয়েছে। তিনি আরও বলেন, জনগণ শেখ হাসিনা সরকারের সঙ্গে রয়েছে। সুতরাং যারা পেছন থেকে উগ্র সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীকে উস্কানি ও অর্থায়ন করছে, তাদের মুখোশও উন্মোচন করা হবে।

সুবর্ণজয়ন্তী উৎসবে যোগ দিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফরের বিরোধিতার নামে গত ২৬ থেকে ২৮ মার্চ ঢাকা, চট্টগ্রাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ বিভিন্ন স্থানে হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা রক্তাক্ত সহিংসতার পাশাপাশি ব্যাপক ভাঙচুর চালিয়েছে। তাদের ডাকা হরতালেও সহিংসতা হয়েছে। জ্বালাও-পোড়াও থেকে রক্ষা পায়নি রেলস্টেশন, ভূমি অফিস, জেলা প্রশাসক-পুলিশ সুপার-সিভিল সার্জন-জেলা পরিষদসহ বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের কার্যালয়, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সুরসম্রাট দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গন, শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ভাষা চত্বরসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের কার্যালয় ও ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক নির্দশন। আওয়ামী লীগের অফিস জ্বালিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি বঙ্গবন্ধু এবং প্রধানমন্ত্রীর ছবিও ভাঙচুর করা হয়েছে।

সরকারি সূত্রগুলো বলছে, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধির মধ্যেও হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীদের সন্ত্রাস-সহিংসতা অব্যাহত রয়েছে। সর্বশেষ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ রিসোর্টে একজন নারীসহ হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের উপস্থিতির পরও এ সংগঠনের নেতাকর্মীরা যেভাবে হামলা-ভাঙচুর চালিয়ে তাদের নেতাকে ছাড়িয়ে নিয়ে গেছে; সে বিষয়টিও সরকার এবং প্রশাসনকে ভাবিয়ে তুলেছে।

সংশ্নিষ্ট সূত্র জানায়, হেফাজতে ইসলামের নেতাসহ সংশ্নিষ্ট মাদ্রাসাগুলোর ব্যাংক হিসাব ও আয়-রোজগারে অস্বাভাবিক গরমিল পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং আইনসহ বিভিন্ন ধারায় মামলা দেওয়া হতে পারে। এ ছাড়া সন্ত্রাস-সহিংসতা ও প্রাণহানির দায়েও হেফাজত নেতাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি আইনে মামলা করার বিষয়ে ভাবা হচ্ছে। এরই মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ঘটনায় এখন পর্যন্ত আটটি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় আসামি করা হয়েছে সাড়ে ৮ হাজার মানুষকে। এর মধ্যে হেফাজতে ইসলামের দায়িত্বশীল কোনো নেতা বা কর্মীর নাম নেই। হেফাজতের শীর্ষ নেতাদের ইন্ধন কিংবা সম্পৃক্ততা 'পাওয়া গেলে' তাদের এসব মামলায় হুকুমের আসামি করা হতে পারে বলে জানা গেছে।

২০১০ সালে কওমি মাদ্রাসাভিত্তিক সংগঠন হেফাজতে ইসলামের আত্মপ্রকাশ। চট্টগ্রামের হাটহাজারী বড় মাদ্রাসা হিসেবে পরিচিত দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম থেকে পরিচালিত হয় সংগঠনটি। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দাবিতে ২০১৩ সালে গড়ে ওঠা গণজাগরণ মঞ্চের বিরোধিতা করে হেফাজতে ইসলাম নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে প্রথম সবার নজরে আসে। ওই বছর ৫ মে ঢাকার মতিঝিল শাপলা চত্বরে অবস্থান করে গোটা এলাকায় নজিরবিহীন জ্বালাও-পোড়াও চালিয়ে দেশ-বিদেশে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়ে সংগঠনটি।

২০১৩ সালের ৫ মে শাপলা চত্বরের ঘটনার পর হেফাজতে ইসলামের তোলা প্রতিটি দাবিতেই সরকার সমঝোতা কিংবা আপসের পথে হেঁটেছে বলে অভিযোগ রয়েছে। হেফাজতে ইসলামের দাবির মুখে পাঠ্যপুস্তক পরিবর্তন এবং সুপ্রিম কোর্টের সামনের ভাস্কর্য অপসারণের সিদ্ধান্তও সরকার নিয়েছে।

মন্তব্য করুন