করোনা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় আবারও ৫০ শয্যার আইসোলেশন সেন্টার চালু করেছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন। 

মঙ্গলবার দুপুরে নগরের লালদীঘি পাড়ের সিটি করপোরেশন লাইব্রেরি ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ভবনে এ আইসোলেশন সেন্টারের উদ্বোধন করেন সিটি মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী। 

এ সময় প্যানেল মেয়র গিয়াস উদ্দিন, কাউন্সিলর রুমকি সেনগুপ্ত, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মুহাম্মদ মোজাম্মেল হক, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আকতার চৌধুরী, আইসোলেশন সেন্টারের সমন্বয়কারী ডা. মো. মুজিবুল আলম চৌধুরীসহ সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর ও কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, আইসোলেশন সেন্টারে চিকিৎসাধীন রোগীরা বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা, ওষুধ, খাবার ও অপিজেন সহায়তা পাবেন। রোগী পরিবহন ও স্থানান্তরের জন্য সার্বক্ষণিক অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস থাকবে। এই আইসোলেশন সেন্টারের মাধ্যমে ২৪ ঘণ্টা স্বাস্থ্যসেবা নিতে পারবেন নগরবাসী। প্রয়োজনে এটি আরও সম্প্রসারণ করা হবে।

সূত্র জানায়, সিটি করপোরেশন লাইব্রেরি ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ভবনটির দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলায় করোনা উপসর্গ আছে এমন রোগীদের জন্য ৫০টি শয্যা পাতা হয়েছে। এর মধ্যে দ্বিতীয় তলায় পুরুষদের জন্য ৩৫টি ও তৃতীয় তলায় নারীদের জন্য ১৫টি শয্যা রয়েছে। ইতোমধ্যে আইসোলেশন সেন্টারটিতে পদায়ন করা হয়েছে ১১ জন চিকিৎসক। এ ছাড়া ১২ জন প্যারামেডিকস, ৩ জন ফার্মাসিস্ট, ৮ জন ওয়ার্ডবয়, ২ জন স্টোরকিপার, ৩ জন ওয়ার্ড মাস্টারও নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। রোস্টার অনুযায়ী তারা ২৪ ঘণ্টা দায়িত্ব পালন করবেন। শুরুতে করোনা উপসর্গ আছে এমন রোগীদের ভর্তি করা হবে। জটিল রোগীদের নিজস্ব তত্ত্বাবধানে সরকারি হাসপাতালে রেফার করা হবে।

গত বছরের জুনে নগরের আগ্রাবাদে সিটি কনভেনশন সেন্টারে ২৫০ শয্যার আইসোলেশন সেন্টার চালু করেছিল চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন। দুই মাসের কম সময় স্থায়ী হওয়া আইসোলেশন সেন্টারটি ঘিরে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছিল।