কক্সবাজারের পেকুয়ায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে সেলিনা আক্তার (৩৭) নামে এক গৃহবধূ নিহত হয়েছেন। 

রোববার রাত আড়াইটার দিকে উপজেলার বারবাকিয়া ইউনিয়নের বুধামাঝির ঘোনা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত গৃহবধূ ওই এলাকার ফরিদুল আলমের স্ত্রী। এ সময় গুলিবিদ্ধ হয় ওই এলাকার মোহাম্মদ সেলিমের ছেলে ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নাজমুল সাকিব (২৩) ও একই এলাকার নুরুল আবছারের ছেলে সাইফুল ইসলাম(২৮)।

স্থানীয়রা জানান, ওই এলাকার রমিজ উদ্দিনের ছেলে মামুন গংয়ের সঙ্গে একই এলাকার মৃত জামাল উদ্দিনের ছেলে নুরুল ইসলাম গংয়ের মধ্যে জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এরই জের ধরে রোববার রাতে মামুন গং সংঘবদ্ধভাবে সন্ত্রাসীদের নিয়ে ফাঁকা গুলিবর্ষণ করে প্রতিপক্ষ নুরুল ইসলামের বসতবাড়িতে হামলা ও তাণ্ডব চালিয়ে ঘরবাড়ি ভাংচুর করে। সন্ত্রাসীরা চলে যাওয়ার সময় পাশের ফরিদুল আলমের বসতঘরে হানা দিয়ে গোয়ালঘর থেকে গরু লুট করতে যায়। এসময় ফরিদুলের স্ত্রী সেলিনা বিষয়টি টের পেয়ে বের হলে সন্ত্রাসীরা তাকে গুলি করে। ঘটনাস্থলে সেলিনার মৃত্যু হয়। 

গুলির আওয়াজ শুনে সাকিব ও সাইফুল বাড়ি থেকে বের হলে তাদেরকেও গুলি করা হয়। এ সময় স্থানীয়রা জড়ো হয়ে হোসেনের ছেলে মাহামুদুল করিম ও মফিজুর রহমানকে আটক করে পুলিশের হাতে সোপর্দ করে।

নিহত গৃহবধূর স্বামী ফরিদুল আলম বলেন, মধ্যরাতে সন্ত্রাসীরা আমার গরু লুট করার চেষ্টা করে। ওই সময় আমার স্ত্রী সেলিনা ঘর থেকে বের হলে তাকে গুলি করে হত্যা করে। আমার চারটি গরু লুট করে নিয়ে যায়। 

এ ব্যাপারে পেকুয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কানন সরকার বলেন,  জমি নিয়ে সংঘর্ষ হয়। ওই সময় পাশের বাড়ির সেলিনা ঘর থেকে বের হলে গুলিতে নিহত হয়। ঘটনার প্রাথমিক তদন্ত করছি। দুইজনকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় আইনত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।