গত এক সপ্তাহে বরিশাল অঞ্চলে ডায়রিয়ার প্রকোপ দেখা দিয়েছে। এতে হাসপাতালে আসা রোগীদের স্থান সংকুলান হচ্ছে না। রোগী বাড়ায় আইভি স্যালাইন সংকটও দেখা দিয়েছে।

সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মলয় কৃষ্ণ বড়াল জানান, ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিন অর্ধশতাধিক রোগী হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসছেন। ডায়রিয়ার ওয়ার্ডে কাগজপত্রে শয্যা আছে চারটি। সেখানে আরও ১০টি শয্যা স্থাপন করা হয়েছে। এতেও রোগীদের স্থান সংকুলান না হওয়ায় ওয়ার্ডের বারান্দা এমনকি সংলগ্ন খোলা আকাশের নিচেও রোগীরা আশ্রয় নিয়েছেন। এ কারণে জরুরিভিত্তিতে মঙ্গলবার ডায়রিয়া ওয়ার্ড সংলগ্ন খোলা জায়গায় বাঁশ দিয়ে শামিয়ানা স্থাপন করা হয়েছে, যাতে সেখানে রোগী রেখে চিকিৎসা দেওয়া যায়।

জানা গেছে, জেলা হাসপাতালের মতো উপজেলা হাসপাতালগুলোতেও একই অবস্থা। স্থানীয় চিকিৎসকদের কাছে চিকিৎসা নিচ্ছেন বেশিরভাগ রোগী।

এদিকে বরিশালে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুদের চিকিৎসা দেওয়া হয় শেরেবাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় (শেবাচিম) হাসপাতালে। সেখানেও প্রতিদিন প্রায় অর্ধশত শিশু চিকিৎসা নিচ্ছে। সোমবার এ হাসপাতালে ৩১ জন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশু ভর্তি ছিল। এপ্রিল মাসের প্রথম ১০ দিন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ২৫০ শিশু এ হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে বলে জানা গেছে।

বরিশালের সিভিল সার্জন ডা. মনোয়ার হোসেন জানান, জেলার সর্বত্র ডায়রিয়ার রোগী বাড়ায় আইভি স্যালাইন সংকট দেখা দিয়েছে। তাই স্যালাইন সরবরাহ চেয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে চাহিদাপত্র পাঠানো হয়েছে।

জেলা সদর হাসপাতালে কর্মরত সেবিকারা জানান, হাসপাতালে আইভি স্যালাইনের মজুদ শেষ হয়ে গেছে। রোগীরা বাইরে থেকে স্যালাইন কিনে আনছেন। সোমবার এ হাসপাতালে ৫৪ ডায়রিয়ার রোগী চিকিৎসাধীন ছিলেন।

মন্তব্য করুন