ফেনীর সোনাগাজীতে এক জামায়াত নেতার বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদে লকডাউন উপেক্ষা করে মানববন্ধন করেছেন তার সমর্থকরা। বৃহস্পতিবার সকালে পৌরসভার জিরো পয়েন্টে এ মানববন্ধন হয়। এ সময় প্রতিপক্ষের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ হলে উভয় পক্ষের অন্তত ১২ জন আহত হন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

জানা গেছে, উপজেলার চরছান্দিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ-পূর্ব চরছান্দিয়া ওয়াপদা কলোনিতে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে গত শনিবার তাসলিমা আক্তার ও আকলিমা আক্তার নামে দুই গৃহবধূর ওপর হামলা হয়। এ ঘটনায় বুধবার তাসলিমা বাদী হয়ে সোনাগাজী উপজেলা জামায়াতের সাবেক আমির কালিম উল্যাহকে প্রধান আসামি করে সাতজনের বিরুদ্ধে মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

তাসলিমা অভিযোগ করে বলেন, মামলা দায়েরের পর কালিম উল্যাহ তাদের মামলা তুলে নিতে হুমকি দেন। এতে ব্যর্থ হয়ে তার সমর্থকদের উস্কানি দিয়ে বৃহস্পতিবার সকালে মানববন্ধনের আয়োজন করেন। তাসলিমা বলেন, এ সময় তিনি তার পরিবারের কয়েকজন সদস্যকে নিয়ে জিরো পয়েন্ট হয়ে থানায় যাওয়ার সময় মানববন্ধনে উপস্থিত গোলাম মাওলা ও জসিম উদ্দিনের নেতৃত্বে তাদের ওপর হামলা চালানো হয়। এতে তিনিসহ ছয়জন আহত হন।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে জামায়াত নেতা কালিম উল্যাহ বলেন, চার বোনের একটি পরিবার পূর্ব চরছান্দিয়া গ্রামের বস্তিতে এলাকাবাসীর ওপর দীর্ঘদিন ধরে অত্যাচার-নির্যাতন চালিয়ে আসছে। মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। এর প্রতিবাদে ভুক্তভোগীরা বৃহস্পতিবার সকালে মানববন্ধন করলে তাসলিমা ও আকলিমা ভাড়াটে সন্ত্রাসী নিয়ে হামলা চালায়। হামলায় মানববন্ধনকারীদের পাঁচজন আহত হন বলে কালিম উল্যাহ জানান।

সোনাগাজী মডেল থানার ওসি সাজেদুল ইসলাম বলেন, মানববন্ধন ও সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে যায়। সংঘর্ষের ঘটনায় কোনো পক্ষ থানায় লিখিত অভিযোগ করেনি। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন