সন্তানকে নিয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরলেন ঠাকুরগাঁওয়ের সেই রিকশাচালক বাবা তারেক ইসলাম। হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে ৯ দিন পর রোববার দুপুর ১টায় পিকআপে করে স্ত্রী, ছয় মাস বয়সী সন্তান জান্নাতিকে নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন তিনি। সেই পিকআপে নেয়া হয়েছিল স্ত্রী-অসুস্থ সন্তানকে নিয়ে ৯ ঘণ্টায় ১১০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দেয়া রিকশাটিও। 

বাড়ি ফেরার সময় তার অসুস্থ শিশু সন্তানের চিকিৎসায় সহায়তার হাত বাড়ানো সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান পরিবারটি। ওই শিশুটির সুস্থতার ছাড়পত্র দেয়ার তথ্য নিশ্চিত করেছেন শিশু সার্জারি বিভাগের সহকারি অধ্যাপক মাহফুজুল হক।  

তিনি বলেন, সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় শিশু জান্নাতের অস্ত্রোপচার করা হয়। অস্ত্রোপচারের পর শিশু জান্নাতকে সাত দিন হাসপাতালের পোস্ট অপারেটিভ ওয়ার্ডে রাখা হয়েছিল। পেটের মধ্যে নাড়ি পেঁচিয়ে যাওয়ায় শিশুটি অসুস্থ হয়ে পড়েছিল। বর্তমানে শিশুটির শারীরিক অবস্থার উন্নতি হওয়ায় ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে।

শিশু জান্নাতির বাবা তারেক ইসলাম বলেন, শূন্য হাতে বাচ্চাকে নিয়ে হাসপাতালে এসেছিলাম। আমার বাচ্চার অপারেশন করাতে এক টাকা খরচ করতে হয়নি। এখন বাচ্চা সুস্থ হয়েছে। বাড়ি ফিরে যাচ্ছি। দেশ-বিদেশ থেকে যতো টাকা অনুদান পেয়েছি, বাচ্চার ভবিষ্যতের জন্য সেই টাকা দিয়ে জমিজমা কিনেছি।

উল্লেখ্য, রক্ত পায়খানা হওয়ায় গত ১৩ এপ্রিল রাতে শিশু জান্নাতিকে ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। সেখানে চিকিৎসা চলা অবস্থায় পর দিন উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন চিকিৎসক। কিন্তু অ্যাম্বুলেন্স ভাড়ার টাকা জোগাড় করতে না পেরে তিন দিন পর ১৭ এপ্রিল শনিবার ৯ ঘণ্টায় ১১০ কিলোমিটার রিকশা চালিয়ে সন্তানকে নিয়ে রংপুরে আসেন তারেক।

মন্তব্য করুন