মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলায় ছেলেকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ উঠেছে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। পরে ওই ব্যক্তি বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায় বলে জানা গেছে। মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

রোববার রাতে কালকিনি উপজেলার গোপালপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গোপালপুর এলাকার তোফাজ্জেল হোসেনের স্ত্রী মিনারা বেগম একই এলাকার আব্দুর রশিদের সঙ্গে অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। মাস দেড়েক আগে তারা পালিয়ে যান। এর পর থেকে মানসিক যন্ত্রণায় ভুগছিল তোফাজ্জেল। এর মধ্যে রোববার সন্ধ্যায় মিনারা বেগম তোফাজ্জেলকে ফোন করে ছেলে রনিকে (১০) তার কাছে দিতে বলে। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। সেই বিবাদের জেরে রাত ১০টার দিকে তোফাজ্জেল ধারালো অস্ত্র দিয়ে ছেলে রনিকে গলা কেটে হত্যা করে বলে জানায় পরিবারের লোকজন। পরে তোফাজ্জেল বিষ পান করে। শিশু রনি খৈয়ারভাঙ্গা এতিমখানায় লেখাপড়া করত।

কালকিনি থানার ওসি ইশতিয়াক আসফাক রাসেল জানান, শিশুটির লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মাদারীপুর সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. সাইফুল ইসলাম জানান, তোফাজ্জেলের অবস্থা প্রথমে খারাপ থাকলেও এখন কিছুটা উন্নতি হয়েছে।

মন্তব্য করুন