দিনে ফেরি চলাচল বন্ধ ঘোষণার পরও শনিবার সকাল থেকে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে আসতে শুরু করেছেন হাজারো ঘরমুখো মানুষ। তবে পুলিশের কঠোর অবস্থানের কারণে শিমুলিয়া ঘাটের প্রবেশমুখ থেকে তাদের ফিরে যেতে বাধ্য করা হচ্ছে।

যাত্রীরা জানান, মাঝরাতের এ ঘোষণা তাদের অনেকেই জানেন না। ঘাটে এসে দেখেন ফেরি বন্ধ আর পুলিশ তাদের ঘাট এলাকা থেকে বের করে দিচ্ছে।

করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক হঠাৎ করেই শিমুলিয়া-বাংলাবাজার রুটে দিনে ফেরি চলাচল বন্ধ ঘোষণা করে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্পোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি)। সংস্থাটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, শুধু রাতে পণ্যবাহী পরিবহন পারাপারের জন্য ফেরি চলাচল করবে।

এদিকে ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ে, মাওয়া চৌরাস্তা ও শিমুলিয়া ঘাটের প্রবেশমুখে পুলিশ চৌকি দেখা গেছে। এসব টহল চৌকি থেকে দক্ষিণবঙ্গগামী যাত্রীদের ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। 

শিমুলিয়া ফেরি ঘাটের ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক (টিআই) হিলাল উদ্দিন বলেন, শিমুলিয়া ঘাটের এক কিলোমিটার দূর থেকে যাত্রীদের ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। কোনো যাত্রীকে শিমুলিয়া ঘাট এলাকায় ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। এতদিন লঞ্চ ও স্পিডবোট চলাচল বন্ধ ছিল আর আজ থেকে দিনের বেলা ফেরি চলাচল বন্ধ ফলে কোনভাবেই নদী পার হতে পারবে না কেউ।

যাত্রীদের ঘাট এলাকায় ভীড় না করতে অনুরোধ করেন তিনি।

বিআইডব্লিউটিসির শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) শাফায়াত আহমেদ জানান, শেষ রাত থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছেন তারা। তবে সন্ধ্যার পর কয়টি ফেরি দিয়ে সার্ভিস চালু রাখা হবে এ ব্যাপারে এখনও পর্যন্ত তিনি কিছু জানেন না।

মন্তব্য করুন