নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের পিরোজপুর ইউনিয়নের ঝাউচর গ্রামে হোসনে আরা (৫০) নামে এক নারীকে শ্বাসরোধে হত্যা করেছে তার বাড়ির ভাড়াটিয়া। শনিবার রাতে এই ঘটনা ঘটে। নিহত হোসনে আরা ঝাউচর গ্রামের আজিমউদ্দিনের স্ত্রী।  

পুলিশ জানিয়েছে, বাড়ির মালিককে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অচেতন করে তার স্ত্রীকে হত্যার পর ঘরে থাকা নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে গেছে ভাড়াটিয়া। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে রোববার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। 

নিহত হোসনে আরার ছেলে আল আমিন বলেন, রংপুর এলাকার হারুন অর রশিদ ও তার স্ত্রী সুলতানা স্থানীয় একটি কারখানায় চাকরি করেন। গত পাচঁ মাস থেকে আমাদের বাড়ির ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করে আসছেন তারা। এই সুবাদে হারুন অর রশিদের সঙ্গে আমার বাবার সুসম্পর্ক গড়ে উঠে। বিশ্বসস্থ হওয়ায় আমাদের বাসায় হারুন অর রশিদ ও তার স্ত্রী নিয়মিত যাতায়ত করতেন। আমার মা কোথায় টাকা ও স্বর্ণালংকার রাখতেন সব কিছুই জানতেন ভাড়াটিয়ার স্ত্রী সুলতানা। 

তিনি বলেন, সেই সুযোগে শনিবার রাতে ভাড়াটিয়া হারুন অর রশিদ আমার বাবা ও মায়ের সঙ্গে গল্প করার এক পর্যায়ে  কৌশলে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অচেতন করেন। পরে আমার মাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে ঘরে থাকা তিন ভরি স্বর্ণালংকার ও নগদ ২ লাখ টাকা নিয়ে পালিয়ে যান।

সোনারগাঁ থানার ওসি মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান জানান,  ঘুমের ওষুধ খাইয়ে বাড়ির মালিকের স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যার পর ভাড়াটিয়া পালিয়ে গেছেন। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

মন্তব্য করুন