বাগেরহাটে বিরোধপূর্ণ জমিতে থাকা তালগাছের শাঁস কাটা নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে এক বৃদ্ধ নিহত হয়েছেন।

রোববার রাতে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যু হয় তার।

ফজলুর রহমান তরফদার (৬৫) বাগেরহাট সদর উপজেলার ডেমা গ্রামের মৃত আশ্বাব তরফদারের ছেলে। তিনি ডেমা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক সদস্য।

জানা যায়, রোববার বিকেলে বাগেরহাট সদর উপজেলার ডেমা গ্রামে বিরোধপূর্ণ জমিতে থাকা তালগাছের শাঁস কাটতে গেলে ফজলুর রহমান ও প্রতিপক্ষ দেলোয়ার হোসেন গাজীদের মধ্যে মারামারি হয়। ফজলুর রহমান ও দেলোয়ার হোসেন গাজী আহত হন।

পরে দেলোয়ার হোসেন ও তার লোকজন ফজলুর রহমানকে ধরে নিয়ে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। এলাকাবাসী ও স্বজনরা উদ্ধার করে ফজলুর রহমানকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। চিকিৎসাধীন অরস্থায় তিনি সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে মারা জান।

নিহতের ছেলে গিয়াস তরফদার বলেন, আমাদের নিজস্ব জমিতে আমি এবং আমার বাবা তাল শাঁস কাটতে যাই। তখন দেলোয়ার ও তার তার ছেলে আব্দুল্লাহ গাজীসহ আরো লোকজন আমার বাবাকে মারধর করে এক পর্যায়ে আমার আব্বাকে ওরা তুলেনিয়ে হাতুড়িদিয়ে পিটিয়ে গুরুতর যখম করে ফেলে রাখে। পরে আমরা বাবাকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেই। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাতে আমার বাবা মারা যায়।

এদিকে আহত দেলোয়ার হোসেন গাজী বলেন, ফজলুর রহমান আমাদের জমির তাল শাঁস কাটতে আসে। বাধা দিলে সে আমাকে কোপ দেয়। এতে আমার হাত কেটে যায়। পরবর্তীতে আমাদের লোকজনও ফজলুর রহমানকে মারধর করে।

বাগেরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মীর শাফিন মাহমুদ বলেন, জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে দুই পক্ষেরর মারামারিতে দুইজন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে ফজলুর রহমান নামের একজন খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। ফের কোন অপ্রিতিকর ঘটনা এড়াতে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। হত্যার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তার করতে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।

বিষয় : বাগেরহাট

মন্তব্য করুন