রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) খনন করা পুকুরের মাটি থেকে গত দু'দিনে আরও পাঁচটি মর্টার শেল উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে শুক্রবার সকালে একটি ও গত বৃহস্পতিবার চারটি মর্টার শেল উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধার মর্টার শেলগুলো শুক্রবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন পশ্চিম বুধপাড়ায় নিস্ক্রিয় করেছে বগুড়া সেনানিবাসের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট। বিষয়টি নিশ্চিত করে মতিহার থানার ওসি এসএম সিদ্দিকুর রহমান বলেন, বগুড়া সেনানিবাসের ক্যাপ্টেন মো. মিনহাজের নেতৃত্বে ২৫ সদস্যের একটি দল শুক্রবার রাজশাহীতে আসেন। দুপুরে তারাই পরিত্যক্ত মর্টার শেলগুলো নিস্ক্রিয় করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, প্রায় এক মাস আগে নিচু জমি ভরাট করার জন্য রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের খনন করা পুকুর থেকে মাটি কেনেন পশ্চিম বুধপাড়ার মংলা নামে এক ব্যক্তি। বৃহস্পতিবার জমির মাটি সমান করতে গিয়ে কেনা মাটির ভেতর থেকে চারটি মর্টার শেল পান। শুক্রবার সকালে আরও একটিসহ মোট পাঁচটি মর্টার শেল দেখতে পান তিনি। খবর পেয়ে মতিহার থানা পুলিশ মর্টার শেলগুলো হেফাজতে নেয়।

এর আগে ২৭ এপ্রিল বিশ্ববিদ্যালয়ের বধ্যভূমি এলাকায় পুকুর খননের সময় একটি মর্টার শেল উদ্ধার করা হয়। ৩০ এপ্রিল তিনটি মর্টার শেল ও একটি রকেট লঞ্চার উদ্ধার করা হয়।

একাত্তরে রাবির শহীদ শামসুজ্জোহা হল পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর নির্যাতন ক্যাম্প ছিল। সম্প্রতি সেখানে একটি পুকুর খনন করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এতে মাটির সঙ্গে উঠে আসছে এসব মর্টার শেল। উদ্ধার হওয়া সব মর্টার শেলই মুক্তিযুদ্ধের সময়কার।