পটুয়াখালীর গলাচিপায় ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে বেড়িবাধঁ ভেঙে জোয়ারের পানি ঢুকে ১৫টি গ্রামে প্লাবিত হয়ে দুই শতাধিক বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। এছাড়া পাঁচ শতাধিক পুকুরের মাছ ভেসে গেছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে ২ হাজার পরিবার। 

স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ড অফিস সূত্র জানায়, তালতলী ইউনিয়নের বন্যাতলী পয়েন্ট ও কলাগাছিয়া ইউনিয়নের কলাগাছিয়া সিকদার বাড়ির কাছে বেড়িবাঁধ বিধ্বস্ত হয়ে জোয়ারের পানি ঢুকে ৬টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এছাড়া ভাংগা বেড়িবাঁধ দিয়ে পানি ঢুকে গোলাখালী ইউনিয়নের দক্ষিণ পূর্ব গোলাখালী, চর কাজল ইউনিয়নের বড় কাজল, ছোট কাজলসহ ৯টি গ্রাম তলিয়ে গেছে। চরকাজল, চর বিশাস, কলাগাছিয়া, চিকনিকান্দি, পানপট্টি ও গলাচিপা ইউনিয়নের ২ হাজার মিটার বেড়িবাঁধ ঝুঁকির মুখে রয়েছে। 

এ দিকে পানিবন্দি পরিবারের মধ্যে বিশুদ্ধ পানি ও খাবার সংকট দেখা দিয়েছে। পৌর এলাকার ১নং ওয়ার্ডে জাপানি ব্যারাকের বাসিন্দা পানিবন্দি আজমুন নাহার বলেন, দুই দিন ধরে পানিবন্দি অবস্থায় আছি। রান্না বন্ধ, না খেয়ে আছি। 

গলাচিপা উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশীষ কুমার বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ বেড়িবাঁধ রক্ষার জন্য স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে জিইও ব্যাগ দেয়া হচ্ছে। জরুরি ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনার জন্য প্রতি ইউনিয়নে ২৫ হাজার ও পৌরসভায় ২ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।