আদমদীঘি উপজেলা পরিষদ চত্বরে পার্কের বাগানে ফুলগাছ খাওয়ায় এক ছাগলের দুই হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সীমা শারমিন ছাগল মালিকের অনুপস্থিতে এই জরিমানা আদায় করেছেন বলে জানা যায়।

ছাগলের মালিক সাহারা বেগম জানান, তিনি আদমদীঘি উপজেলার ডাকবাংলো সংলগ্ন এলাকায় বসবাস করেন। তার স্বামীর নাম জিলতুর রহমান। গত ১৭ মে তার ছাগলটি হারিয়ে যায়। পরে এলাকার লোকজন তাকে জানায় ছাগলটি ইউএনওর এক নিরাপত্তা কর্মীর জিম্মায় রয়েছে। তিনি ইউএনওর বাসার পাশে গিয়ে এক নিরাপত্তাকর্মীকে ওই ছাগলকে ঘাস খাওয়াতে দেখেন। এ সময় সাহারা বেগম ছাগল নিতে চাইলে তাকে দেওয়া হবে না বলে জানিয়ে দেন ওই নিরাপত্তাকর্মী।

পরে তিনি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে গেলে তিনি (নির্বাহী অফিসার) বলেন, ফুলগাছের পাতা খাওয়ার অপরাধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ওই ছাগলের দুই হাজার টাকা জরিমানা হয়েছে। জরিমানার টাকা দিয়ে ছাগল নিয়ে যান। জরিমানার টাকা পরিশোধ করতে না পারায় ছাগলটি জনৈক ব্যক্তির হেফাজতে রাখেন।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সীমা শারমিন জানান, উপজেলা চত্বরে একটি পার্ক করা হয়েছে। সেখানে বিভিন্ন জায়গা থেকে ফুলের গাছ এনে লাগানো হয়েছে। কিন্তু এখানে ওই ছাগল এসে গাছের ফুলগুলো খেয়ে ফেলেছে কয়েকবার। এ বিষয়ে ছাগলের মালিককে বার বার সতর্ক করা হয়েছে। কিন্তু তিনি তা আমলে নেননি। এ কারণে গণ উপদ্রপ আইনে ভ্রাম্যমাণ আদালতে দুই হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ২৭ মে (বৃহস্পতিবার) বিকেল পর্যন্ত ছাগলটি এক ব্যক্তির জিম্মায় রয়েছে। ছাগল বিক্রি করা হয়নি।