কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তের ওপারে ভারতে রাশিদা খাতুন (৪০) নামে বাংলাদেশি এক নারীর লাশ উদ্ধার হওয়ার চার দিন পর তা ফেরত দিয়েছে বিএসএফ। 

মঙ্গলবার বিকেল ভারতের চরমেঘনা সীমান্তে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে বিজিবির কাছে এই লাশ হস্তান্তর করা হয়।

এ সময় বিজিবির পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ৪৭ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধীন প্রাগপুর কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার আমজাদ হোসেন ও দৌলতপুর থানার উপ-পরিদর্শক জিয়াউর রহমান জিয়া এবং বিএসএফের পক্ষে ছিলেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলার চরমেঘনা বিএসএফ ক্যাম্পের অধিনায়ক এসি বিমল কুমার, হোগলবাড়িয়া থানার ইন্সপেক্টর ফারুক হোসেন ও করিমপুর থানার ওসি পিন্টু সরকার। পরে লাশ বাংলাদেশে নেওয়ার পর তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে বিজিবি।

শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে দৌলতপুরের বিলগাথুয়া-জয়পুর সীমান্তের ওপারে ভারতের কুড়মিপাড়া ভাদ্রিখোলা এলাকার একটি ধানখোলার পাশে বাংলাদেশি ওই নারীর লাশ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা হোগলবাড়িয়া থানা পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে হোগলবাড়িয়া থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কৃষ্ণনগর জেলা সদর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এই লাশ ফেরত চেয়ে বিএসএফকে চিঠি দেয় বিজিবি।

নিহত ওই নারী দৌলতপুর উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের গুড়ারপাড়া গ্রামের আব্দুল কাদেরের মেয়ে। তিনি মৃগী রোগে আক্রান্ত ছিলেন। তবে কীভাবে মারা গেছেন, তা জানা যায়নি। গত শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে বের হয়ে রাশিদা আর বাড়ি ফেরেননি বলে তার পরিবার জানিয়েছে।