নাটোরের বড়াইগ্রামের বনপাড়া পৌরসভার মেয়র কেএম জাকির হোসেনের ছোট ভাই উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কেএম জিল্লুর হোসেন জিন্নাহর জন্মদিনে অস্ত্র উঁচিয়ে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন ভাতিজা কেএম শোভন। এমনই একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। এ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে। পুলিশ ঘটনাটি তদন্তে মাঠে নেমেছে।

মঙ্গলবার দুপুর দেড়টার দিকে কেএম শোভনের ফেসবুকে ভিডিওটি ছাড়া হয়। ভিডিওতে তাকেই মোটরসাইকেলের পেছনে বসে পিস্তল উঁচিয়ে মহড়া দিতে দেখা যায়। তবে ভিডিওটি একটি শর্টফিল্মের দৃশ্য বলে জানা গেছে।

শোভনের দাবি, তার চাচা কে এম জিল্লুর রহমানকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে তিনি ভিডিওটি পোস্ট করেন। ভিডিওতে দেখা যাওয়া পিস্তলটি প্লাস্টিকের তৈরি এবং এ দৃশ্য ধারণ করা হয়েছিল একটি শর্টফিল্মের জন্য।

জানা যায়, ১৫ সেকেন্ডের এ ভিডিও ধারণ করা হয়েছে বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়কের পাশের রাস্তায়। ভিডিওটিতে কোনো তারিখ বা সময় উল্লেখ নেই। ভিডিওটি পোস্ট করার পর মুহূর্তেই ছড়িয়ে পড়ে। তবে বিকেলের পর থেকে ভিডিওটি আর শোভনের ফেসবুক আইডিতে পাওয়া যায়নি।

ভিডিওর বিষয়ে বনপাড়া পৌরসভার মেয়র কেএম জাকির হোসেন বলেন, ওটা আসল পিস্তল নয়। ওদের ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে, সেখানে ছাড়ার জন্য শুটিং করেছিল।

ভিডিওটি নিজ ফেসবুক আইডিতে পোস্ট করার কথা স্বীকার করে কেএম শোভন বলেন, ওই দৃশ্য ‘নেতা’ নামের একটি নাটকের শুটিং করার সময় ধারণ করা হয়েছিল। চাচার জন্মদিনে অন্য কোনো ছবি পাচ্ছিলাম না, তাই শুভেচ্ছা হিসেবে ভিডিওটি পোস্ট করেছি। তবে ছাড়ার পর বুঝেছি এটা পোস্ট করা ঠিক হয়নি। ভুল হয়েছে।

নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা বলেন, ঘটনাটি জানার পর পুলিশ তদন্ত শুরু করে। ভিডিওর সেই ভাতিজাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে নেতা নামে একটি শর্ট ফিল্মের দৃশ্য বলে জানায় এবং পরবর্তীতে সেই নেতা নামের শর্ট ফিল্মের লিংক দেখানোর পর বিষয়টি নাটকের দৃশ্য এবং পিস্তলটি খেলনা বলে নিশ্চিত হওয়া যায়। তবে খেলনা হলেও এ ধরনের দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়ানোর জন্য তাকে সর্তক করা হয়েছে। বিষয়টি আরও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।